শিরোনাম
এস আলম গ্রুপের বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পুলিশের গুলিতে শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ গ্যালাক্সি এম০২ হ্যান্ডসেটে ১০০ দিনের রিপ্লেসমেন্ট ওয়্যারেন্টি দিচ্ছে স্যামসাং বাঁশখালীতে গুলি করে শ্রমিক হত্যা; সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রামের তীব্র নিন্দা আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিতকরণ প্রভাব ফেলছে পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ও অন্য মেগা প্রকল্পে বাঁশখালীতে এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে শ্রমিক নিহতে খেলাফত মজলিসের নিন্দা বীমা খাতে প্রথম ‘তিন ঘন্টায় কোভিড ক্লেইম ডিসিশন’ সার্ভিস চালু মেটলাইফের মুজিবনগর সরকারের ৪০০ টাকার চাকুরে জিয়ার বিএনপি ইতিহাসকে অস্বীকার করতে চায় ধারাবাহিক ছোট গল্প: পতিতার আলাপচারিতা । পর্ব পাঁচ এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে পুলিশের গুলিতে শ্রমিক হত্যার নিন্দা ও বিচার দাবি সাতকানিয়ায় সোয়া কোটি টাকার ৩৮ হাজার ইয়াবাসহ ট্রাক চালক ও হেলপার গ্রেফতার
রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন

৩৪ বছরে আবৃত্তি চর্চার পুরোধা সংগঠন ‘বোধন’

পরম বাংলাদেশ প্রতিবেদন / ৩৪৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১

আবৃত্তি চর্চার সংগঠন ‘বোধন আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম’ আগামী ৯ জানুয়ারি পদার্পণ করবে ৩৪ বছরে। বাংলাদেশের বয়সের সাথে তুলনা করলে একটি সংগঠনের ৩৪ বছর মোটেও কম নয়। বাংলাদেশে সংগঠন চর্চায় তাই বোধন একটি পুরোধা সংগঠন তা নির্দ্বিধায় বলা যায়; অন্তত আবৃত্তি সংগঠনগুলোর ক্ষেত্রে পুরো দেশের মধ্যে অন্যতম একটি সংগঠনে পরিণত হয়েছে বোধন। জন্মের পর থেকে একদন্ডও না থেমে ক্রমাগত সক্রিয় ও চলমান থেকেছে বোধন।

এই চলমানতা আবৃত্তি চর্চায় এনেছে বৈচিত্র্য, পরিবর্তন এনেছে আবৃত্তির গুণগত মানে এবং সাংগঠনিক চর্চায় যুক্ত করেছে নতুন নতুন মাত্রা। বোধন শুধু কর্মসূচির দিক থেকে নয়, সদস্য সংখ্যার দিক থেকেও এই সংগঠনের বিস্তার ঈর্ষনীয় বলা চলে।

১৯৮৭ সালের ৯ জানুয়ারি বোধনের জন্ম। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন যখন তুঙ্গে তখন আবৃত্তিকে কণ্ঠে ধারণ করে বিভিন্ন মঞ্চে যেমন তেমনি রাজপথের আন্দোলনেও সক্রিয় থেকেছে বোধন। এর পর বোধন পথ চলেছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে আবৃত্তি শিল্পের উৎকর্ষ সাধনে।

বোধনের প্রথম সভাপতি ছিলেন প্রয়াত রবিশঙ্কর চক্রবর্ত্তী ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন প্রয়াত রণজিৎ রক্ষিত। বোধনের বর্তমান সভাপতি সোহেল আনোয়ার ও সাধারণ সম্পাদক এসএম আব্দুল আজিজ

পত্রিকা: সেই ধারাবাহিকতায় ১৯৯২ সালে বোধন প্রকাশ করে বাংলাদেশের প্রথম আবৃত্তি বিষয়ক ত্রৈমাসিক পত্রিকা ‘আবৃত্তি’। বর্তমানে এর প্রকাশনা বন্ধ থাকলেও এক সময় এই পত্রিকার কাটতি ছিল চট্টগ্রাম শহর ছাড়িয়ে রাজধানী ঢাকাসহ কলকাতায়।

স্কুল: আবৃত্তিতে বোধনের উল্লেখযোগ্য অবদান ‘বোধন আবৃত্তি স্কুল’। আবৃত্তি শেখানো ও চর্চার উৎকর্ষের লক্ষ্যে ১৯৯৩ সালে বোধন প্রতিষ্ঠা করে দেশের প্রথম ও একমাত্র আবৃত্তি বিষয়ক স্কুল। সে বছর আট অক্টোবর অভিনয় ও আবৃত্তি শিল্পী আসাদুজ্জামান নূর বোধন আবৃত্তি স্কুলের উদ্বোধন করেন। বর্তমানে বোধন স্কুলের ৫৪তম আবর্তন চলছে এবং এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ছয় হাজার শিক্ষার্থী এখানে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। ছয় মাসব্যাপী বোধন স্কুলের কোর্সের সিলেবাসে আবৃত্তির অনুষঙ্গ হিসেবে রয়েছে শুদ্ধ উচ্চারণ, কবিতার ভাব ও রস, ছন্দ, উপস্থাপনা, সংবাদ পাঠের মতো বাচিক শিল্প সংশ্লিষ্ট বিষয়সমূহ।

প্রশিক্ষক: বোধন স্কুলে প্রশিক্ষক হিসেবে রয়েছেন ঢাকা ও চট্টগ্রামের প্রতিথযশা আবৃত্তি ও অভিনয় শিল্পী, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কবি ও সাহিত্যিক, রেডিও এবং বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে কর্মরত রিপোর্টার ও সংবাদ পাঠক। বিভিন্ন সময়ে স্কুলের ক্লাস নিয়েছেন ঢাকা ও কলকাতা থেকে আগত খ্যাতিমান ব্যক্তিবর্গ।

অতিথি: বোধনের এই দীর্ঘ পথ চলায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে এসেছেন দেশ-বিদেশের বহু বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন আবৃত্তি শিল্পী ও অভিনেতা গোলাম মুস্তাফা, অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী, রবীন্দ্র গবেষক প্রয়াত ওয়াহিদুল হক, কবি সৈয়দ শামসুল হক, তত্বাবধায়ক সরকারের সাাবেক উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান, আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বিজ্ঞানী ড. জামাল নজরুল ইসলাম, শামসুজ্জামান খান, ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, কবি আবুল মোমেন, শাহরিয়ার কবির, কাজী মুকুল, জিয়া উদ্দিন তারেক আলি, কবি নির্মলেন্দু গুণ, আবৃত্তি শিল্পী ও অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর ও জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিনেতা খালেদ খান, ছড়াকার লুৎফর রহমান রিটন, সুকুমার বড়ুয়া, আবৃত্তি শিল্পী কামরুল হাসান মঞ্জু, শিমুল মুস্তাফা, গোলাম সারোয়ার, হাসান আরিফ, লায়লা আফরোজ, ডালিয়া আহমেদ, মাহিদুল ইসলাম, মীর বরকত, আহকাম উল্লাহ, রবিশঙ্কর মৈত্রী, আরমান পারভেজ মুরাদ, সঙ্গীত শিল্পী মহিউজ্জামান চৌধুরী ময়না, লিলি ইসলাম প্রমুখ।

দেশের বাইরে থেকে আসা অতিথিদের মধ্যে রয়েছেন প্রদীপ ঘোষ, পার্থ ঘোষ, গৌরী ঘোষ, ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায়, সাকোয়াত খান, ঊর্মিমালা বসু, তুলশী রায়, পরিচয় বসু, শোভন সুন্দর বসু, অমিত রায়, রত্না মিত্র, দেবাশীষ সিনহা, পূজন ঘোষ, অরুণাভ গাঙ্গুলী, মলিদেব নাথ, অমিতাভ কাঞ্জিলাল, শর্মিষ্ঠা পাল, শুভময়, সংগীতশিল্পী নূপুর ছন্দা ঘোষ, চিত্রশিল্পী টিংকু দাশ, বৃটিশ কবি ও উপন্যাসিক জেরমি সীব্রুক প্রমুখ।

সম্মাননা: বোধন খ্যাতিমান অনেক আবৃত্তি শিল্পীকে সম্মাননা দিয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন অভিনেতা ও আবৃত্তি শিল্পী প্রয়াত গোলাম মুস্তাফা। গোলাম মুস্তাফা এক বারই চট্টগ্রাম আসেন এবং আবৃত্তি শুনিয়ে দর্শক ও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেন ১৯৯৫ সালে। বোধনের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে তিনি মিউনিসিপ্যাল মডেল হাই স্কুল মাঠে হাজার হাজার দর্শকদের সামনে আবৃত্তি পরিবেশন করেন। বোধন এই শিল্পীকে বিশেষ সম্মাননা দেয়। বোধন সম্মাননা জানায় দেশের প্রখ্যাত আবৃত্তি শিল্পী ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এছাড়াও ভারতের শিল্পী পার্থ ঘোষ, গৌরী ঘোষ, প্রদীপ ঘোষ ও প্রয়াত শিল্পী সাকোয়াত খান, ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায়কে সম্মাননা দেয় বোধন।

অন্য দিকে, সেরা সংগঠন হিসেবে বোধন বেশ কিছু সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্মাননা গ্রহণ করেছে। যে সমস্ত সংগঠন বোধনকে সম্মাননা প্রদান করেছে তার মধ্যে অন্যতম হল কথা আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্র, স্বরকল্পন ঢাকা, স্বনন ঢাকা, কলকাতা থেকে পাওয়া মঞ্জুস দাশগুপ্ত স্মৃতি পদক।

প্রযোজনা ও অনুষ্ঠান: বোধন প্রতিষ্ঠার পর থেকে অসংখ্য প্রযোজনা মঞ্চে নিয়ে আসে। এর মধ্যে বেশ কিছু প্রযোজনা এখনো দর্শকদের সাড়া পাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে ‘কাজল রেখা’, আমিনা সুন্দরী, রাজসভায় মাধবী, কিষাণকাব্য, এখনো একাত্তর, মৃত্যুলোকে সশরীরে, যাদুকেন্দ্রিক, আলেয়া, অনাম্নী অঙ্গনা, ইতিহাসের কথা, জয় সত্যের জয়, সেই সব স্বপ্ন, দেবতার গ্রাস, ডাকঘর, কাবুলী ওয়ালা, স্বপ্নবান অস্ত্র চাই, মুজিব মানে মুক্তি, বিষ বিরিক্ষের বীজ, হিং টিং ছট, মিছিলের রাজপথ।

শিশু বিভাগের প্রযোজনার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে হিংসুটে, হাসির সুতোয় বোনা, গুরুশিষ্য, পান্তা বুড়ির গল্প, আজকে ছুটির দিন, ছড়ানো ছিটানো ছড়া, ভুতের জাদু, বাংলাদেশের কথা।

বোধনের কিছু নিয়মিত ও ধারাবাহিক দর্শক নন্দিত অনুষ্ঠান হচ্ছে জাগাও প্রাণের সুপ্ত শক্তি, লেখাপড়া, কবিতায় কথা কই, আবৃত্তি আড্ডা, কবি ও কবিতা, নিজেরে কর জয়, সকাল বেলার পাখি, জাগো সুন্দর, নবীন বরণ, সমাবর্তন, একুশ মানে মাথা নত না করা।

উৎসব কথা: বোধনের আয়োজনে প্রথম উৎসবটি ছিল ১৯৯৬ সালের সেপ্টেম্বরে; শিশু উৎসব। উৎসবে ছিল শোভাযাত্রা, আবৃত্তি, গল্পবলা, আবৃত্তি প্রতিযোগিতা ও শিশুদের জন্যে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। ২০০২ সালে ‘মুহূর্ত তুলিয় শির একত্র দাঁড়াও সবে’ স্লোগান নিয়ে পনের বছর পূর্তি উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমিতে বোধন আয়োজন করে তিন দিনব্যাপী আবৃত্তি উৎসব। ঢাকা থেকে আবৃত্তির প্রায় সব পরিচিত শিল্পীদের এক মিলন মেলা ছিল পনের বছর পূর্তি উৎসবের তিনটি দিন। অতিথি ছিলেন রবীন্দ্র সংগীত গবেষক ওয়াহিদুল হক, কবি সৈয়দ শামসুল হক, আবৃত্তি শিল্পী আসাদুজ্জামান নূর, ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, কবি আবুল মোমেন, হাসান আরিফ, গোলাম সারোয়ার, মাহিদুল ইসলাম। কলকাতা থেকে আমন্ত্রিত হয়ে আসেন শিল্পী অরুণাভ গাঙুলী ও মলি দেবনাথ।

২০০৫ সালে ‘জাগিয়ে দেরে চমক মেরে আছে যারা অর্দ্ধচেতন’ শিরোনামে বোধন আয়োজন করে আঠার বছর পূর্তি উৎসব। ভারত থেকে অতিথি হিসেবে আসেন আবৃত্তি শিল্পী প্রদীপ ঘোষ। আবৃত্তির দল আসে ঢাকা, রাজশাহী, ফেনী থেকে। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বিজ্ঞানী প্রয়াত ড. জামাল নজরুল ইসলাম, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, শিমুল মুস্তাফা, হাসান আরিফ, লায়লা আফরোজ, মাহিদুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম।

২০০৯ সালের অক্টোবরে বোধন স্কুলের ষোল বছরে ‘উচ্চারো আজ উচ্চারিত শাণিত উচ্চারণ’ স্লোগানে নিয়ে আয়োজন করা য় উৎসব। উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরী আর উদ্বোধন করেছিলেন আবৃত্তি শিল্পী আসাদুজ্জামান নূর।

রবীন্দ্র উৎসব: কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশততম জন্মবর্ষ উদ্যাপন উপলক্ষে বোধন ২০১১ সালের জুনে আয়োজন করে দুই দিনব্যাপী উৎসব। কলকাতা থেকে রত্না মিত্রের নেতৃত্বে গান-আবৃত্তির একটি দল এতে অংশ নেয়। ঢাকা থেকে অংশ নেন রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী মহিউজ্জামান চৌধুরী ময়না, লিলি ইসলাম, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়।

রজতজয়ন্তী: ২০১২ সাল ছিল বোধনের রজতজয়ন্তীর বছর। বছর জুড়ে ছিল বোধনের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠান। সমাপনী অনুষ্ঠানটি ছিল চার দিনব্যাপী; ২৫, ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর ২০১২। চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহকে উৎসর্গ করা উৎসব উদ্বোধন করেন বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরী। এতে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আবৃত্তি শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন। এদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, গোলাম সারোয়ার, মাহিদুল ইসলাম। ভারতের কলকাতা থেকে আসেন খ্যাতিমান আবৃত্তি শিল্পী ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায়। চার দিনের উৎসবের শেষ দিনে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান। উৎসব উদ্বোধন পর্বটি বরাবরই বোধন তার নিজস্ব ঢঙে করে থাকে। প্রদীপ প্রজ্বালনের মধ্য দিয়ে শত কণ্ঠে আবৃত্তি। সেবারও ব্যতিক্রম ছিল না। শিল্পীদের সংখ্যা ছিল ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় দুই শত। আর বোধনের পঁচিশ বছরে বোধনের শিল্পীদের কণ্ঠেও ছিল সুকান্তের ‘বোধন’ কবিতাটির নির্বাচিত পঙক্তিমালা।

বসন্ত উৎসব: বোধন প্রথম বারের মতো চট্টগ্রামের ডিসি হিলে আয়োজন করে বসন্ত উৎসব। সেই উৎসবেরও ১১টি বছর হতে চলল। মাছরাঙা টেলিভিশন প্রতি বছর ডিসি হিল থেকে অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে আসছে। আর এই উৎসব আয়োজনে সহযোগী হিসেবে আছে ‘দৈনিক আজাদী’। পহেলা বৈশাখের উৎসবের মতো বসন্ত উৎসবও হয়েছে চট্টগ্রামের সর্বজনীন উৎসবগুলোর অন্যতম।

রণজিৎ রক্ষিত স্মরণ: ৩০ অক্টোবর বোধনের জন্য শোকের দিন। এ দিন আবৃত্তি শিল্পী, বোধন-রূপকার সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রণজিৎ রক্ষিত প্রয়াত হন। ২০১৯ সালের ২৯ ও ৩০ অক্টোবর বোধন আয়োজন করে দুই দিনব্যাপী রণজিৎ রক্ষিত স্মরণ অনুষ্ঠান। এতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের আবৃত্তি শিল্পীগণ উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন কবি ও সাহিত্যিকগণ। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কবি আবুল মোমেন, ড. ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, কবি রাশেদ রউফ, কামরুল হাসান বাদল, কবি বিশ্বজিৎ চৌধুরী।

গত ২০২০ সালের ৮, ৯ ও ১০ জানুয়ারি বোধন আয়োজন করে ‘৩৩ বছর কাটলো’ শিরোনামে তিন দিনব্যাপী উৎসবের। এতে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আবৃত্তি শিল্পী হাসান আরিফ ও আবৃত্তি শিল্পী শিমুল মুস্তাফা। ১০ জানুয়ারি ছিল রণজিৎ রক্ষিতের জন্ম বার্ষিকীর অনুষ্ঠান।

বোধনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা: এই ব্যাপক কর্মযজ্ঞ বোধন আবৃত্তি পরিষদকে দেশের অন্যতম একটি সংগঠনে পরিণত করেছে। বোধনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে স্কুল পর্যায়ে কর্মশালা পরিচালনা, উপজেলা পর্যায়ে উৎসবের আয়োজন করা, আবৃত্তি পত্রিকার পুনর্প্রকাশ। বোধন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বুকে ধারণ করে সর্বস্তরের মানুষকে ‘আঁধার ভেঙে আলোর বুনন’ এ সম্পৃক্ত করে এগিয়ে যেতে চায় সূর্যোদয়ের দিকে।

add

আপনার মতামত লিখুন :

One response to “৩৪ বছরে আবৃত্তি চর্চার পুরোধা সংগঠন ‘বোধন’”

  1. Utpal sarkar says:

    বোধন এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরে খুব ভালো লাগলো। ভবিষ্যতে এভাবেই এই সংগঠন টি দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তাদের বলিষ্ঠ অবদান রাখবে বলে আমি মনে করি।
    শুভকামনা রইল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ