সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৭:১২ অপরাহ্ন

হজের গুরুত্ব ও জানা অজানা ইতিহাস

ডাক্তার মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ
  • প্রকাশ : শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১
  • ১৯ Time View
ডাক্তার মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ

ডাক্তার মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ: হজ ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ ও মৌলিক ইবাদাত। জ্ঞান-বুদ্ধিসম্পন্ন প্রতিটি সচ্ছল মুসলিম নর-নারীর ওপর হজ পালন করা ফরজ। আত্মিক উন্নতি, সামাজিক সম্প্রীতি ও বিশ্বভাতৃত্ব প্রতিষ্ঠায় হজের গুরুত্ব সর্বাধিক। মুসলিম বিশ্বের ঐক্য-সংহতি গড়তেও হজের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ব মুসলিমের করণীয়-বর্জনীয় সম্পর্কে সঠিক দিকনির্দেনাও লাভ করা যায় হজের বিশ্ব মহাসম্মিলন থেকে। হজ শুধু ইবাদতই নয়, বরং আত্মিক পরিশুদ্ধতার এক অনস্বীকার্য পদ্ধতি।

হজ্ব শব্দের আভিধানিক অর্থ ‘ইচ্ছা’ বা ‘সংকল্প’ একটি যাত্রায় অংশ নেওয়া, নিয়ত করা, দর্শন করা, এরাদা করা, গমন করা, ইচ্ছা করা, প্রতিজ্ঞা করাসহ যে কোন মহৎ কাজের ইচ্ছা করা। হজ্বের পারিভাষিক অর্থ শরিয়তের পরিভাষায় নির্দিষ্ট দিনে নিয়তসহ ইহরামরত অবস্থায় আরাফার ময়দানে অবস্থান করা এবং বায়তুল্লাহ শরীফ তাওয়াফ করা।

আবার কেউ বলেন, জিলহজ্বের ৯ তারিখ ইহরাম বেঁধে আরাফাতের মাঠে অবস্থানসহ কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে নির্ধারিত কয়েকটি আমল যথাযথভাবে আদায় করে কাবা গৃহ তাওয়াফ করাকে হজ্ব বলে। হজ্ব বা হজ্জ বা হজ আরবি শব্দ। হজ্জ ইসলাম ধর্ম পালনকারী অর্থাৎ মুসলমানদের জন্য একটি বুনয়াদী ইবাদত। এটি ইসলাম ধর্মের স্তম্ভগুলোর বিশেষ একটি স্তম্ভ। যেমন- হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, ‘অর্থ হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রাযি হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, ‘‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, পাঁচটি জিনিসের উপর ইসলামের ভিত্তি স্থাপন করা হয়েছে। এগুলো হল আল্লাহ ব্যতীত কোন ইলাহ নেই এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার বান্দাহ ও রাসূল এ কথার সাক্ষ্য দেয়া; নামাজ কায়েম করা ; যাকাত দেয়া; হজ্জ করা ও রমজান মাসের রোজা রাখা।

হজ্জের ইতিহাস অনুসারে জানা যায়, আজ থেকে প্রায় সাড়ে চার হাজার বছর আগে আল্লাহর নির্দেশে হজরত ইবরাহিম (আ.) সর্ব প্রথম হজের প্রবর্তন করেন। হজ প্রবর্তনের আগে হজরত ইবরাহিম (আ.) আল্লাহর নির্দেশে পুত্র ইসমাইলকে (আ.) সঙ্গে নিয়ে পুনর্নির্মাণ করেন কাবাঘর। উল্লেখ্য, কাবাঘরটি হজরত আদম (আ.) ফেরেশতাদের সহায়তায় সর্ব প্রথম নির্মাণ করেছিলেন। হজরত ইবরাহিম জিবরাইলে (আ.) সাহায্যে একই ভিতে অর্থাৎ হজরত আদম (আ.) কর্তৃক নির্মিত কাবার স্থানে এর পুন র্নির্মাণ করেন। নির্মাণকাজ শেষ হলে ইবরাহিমের (আ.) প্রতি নির্দেশ হল- হজব্রত পালনের। আল্লাহ হজরত জিবরাইল (আ.) মারফত তাকে হজের সব আহকাম সম্পর্কে অবহিত করেন। ইবরাহিম (আ.) তার পুত্র ইসমাইলকে (আ.) নিয়ে কাবাঘর সাত বার তাওয়াফ করেন, চুম্বন করেন হাজরে আসওয়াদ এবং একে একে সম্পন্ন করেন হজের সব আহকাম। এরপর আল্লাহর নির্দেশ এল, হজের দাওয়াত বিশ্ববাসীকে পৌঁছে দেওয়ার।

হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘যখন হজরত ইবরাহিমকে (আ.) হজ ফরজ হওয়ার কথা ঘোষণা করার আদেশ দেওয়া হয়, তখন তিনি আল্লাহর কাছে আরজ করলেন, এটা তো জনমানবহীন প্রান্তর। এখানে ঘোষণা শোনার মত কেউ নেই। যেখানে ঘনবসতি আছে, সেখানে আমার আওয়াজ কীভাবে পৌঁছবে? আল্লাহ বললেন, ‘তোমার দায়িত্ব শুধু ঘোষণা দেওয়া। সারা বিশ্বে পৌঁছানোর দায়িত্ব আমার। এ কথা শুনে হজরত ইবরাহিম (আ.) তখন মাকামে ইবরাহিমে দাঁড়িয়ে ঘোষণা দিলেন। আল্লাহ তা উচ্চ করে দেন।’ কোন কোন বর্ণনায় আছে, তিনি আবু কুবায়েস পাহাড়ে আরোহণ করে ঘোষণা দিয়েছিলেন। বর্ণিত আছে, ‘আল্লাহর ইবরাহিমের (আ.) সেই আহ্বান জড়জগতের সীমা অতিক্রম করে রুহানি জগতে গিয়ে পৌঁছেছিল এবং লাব্বাইক বলে যে সব রুহ সেই আহ্বানে সাড়া দিয়েছিল আল্লাহ চান তো কিয়ামত পর্যন্ত তারাই পর্যায়ক্রমে আরাফাতের প্রান্তরে সমবেত হবে!’

এভাবে মক্কা পরিণত হল হজব্রত পালনের ক্ষেত্রস্থল হিসেবে। এ হজ দ্বারা স্থাপিত হল বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর মহামিলনের সুন্দরতম এক দৃশ্য। হজের গুরুত্ব ও তাৎপর্য সম্পর্কে আল কোরআনে আরো ইরশাদ হচ্ছে, ‘এতে রয়েছে মাকামে ইবরাহিমের মত প্রকৃষ্ট নিদর্শন। আর যে লোক এর ভিতরে প্রবেশ করেছে, সে নিরাপত্তা লাভ করেছে। আর এ ঘরের হজ করা হল- মানুষের ওপর আল্লাহর প্রাপ্য, যে লোকের সামর্থ্য রয়েছে এ পর্যন্ত পৌঁছার। আর যারা অস্বীকার করবে (তাদের স্মরণ রাখা উচিত) আল্লাহ বিশ্ববাসীর মুখাপেক্ষী নন।’ সূরা আলে ইমরান, আয়াত ৯৭। আবার একই বাণী প্রতিধ্বনিত হয়েছে রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ভাষায়। সাহাবি আবু সাইদ (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের লক্ষ্য করে বললেন, ‘আল্লাহ তোমাদের প্রতি হজ ফরজ করেছেন। সুতরাং তোমরা হজ কর।’ মুসলিম। প্রিয় নবী হজের ফজিলত সম্পর্কে আরো বলেছেন, ‘বিশুদ্ধ ও মকবুল একটা হজ পৃথিবী ও পৃথিবীর যাবতীয় বস্তু অপেক্ষা উত্তম। বেহেশত ছাড়া আর কোন কিছুই এর প্রতিদান হতে পারে না।’ আরেক বর্ণনায় জানা যায়, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে হজ করবে, হজ পালনকালে স্ত্রীমিলন কিংবা সে সম্পর্কে আলোচনা এবং কোন প্রকার গুণাহের কাজেও লিপ্ত না হয়, সে (হজ শেষে) সদ্যোজাত শিশুর মত নিষ্পাপ অবস্থায় ঘরে প্রত্যাবর্তন করবে।’ আসলে হজ আল্লাহ রব্বুল আলামিন-প্রদত্ত একটি বিশেষ নিয়ামত।

করোনা মহামারির কারণে এবারো বিদেশিরা হজ করতে পারবেন না। শুধু দেশটির নাগরিক ও বাসিন্দারাই এবারের হজে অংশ নিতে পারবেন। তবে এর মধ্যেও টানা হয়েছে সীমা। সর্বোচ্চ ৬০ হাজার মানুষ হজে অংশ নেবেন। গত ১২ জুন এক প্রতিবেদনে এসব জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স। সৌদি রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থার বরাতে এ প্রতিবেদনে আরো জানানো হয়, শুধুমাত্র ১৮ থেকে ৬৫ বছর বয়সী ব্যক্তি যারা করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন- তারাই হজে অংশ নেবেন।

বাংলাদেশের ধর্ম প্রতি মন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল বলেছেন, ‘করোনা মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনায় এ বছরও সৌদি আরবের বাইরের কোন দেশ হতে হজযাত্রীরা হজের সুযোগ পাবেন না। সৌদি আরবের নাগরিক ও সৌদি আরবে অবস্থানকারী অন্য দেশের মুসলিমদের নিয়ে সীমিত আকারে হজ পালিত হবে।’

গত বছর সীমিত পরিসরে মাত্র এক হাজার সৌদি নাগরিক ও সেখানে অবস্থানরত বিদেশিদের হজের অনুমতি দেওয়া হয়। এ বছর হজ পালনের তারিখ ১৯ জুলাই। আধুনিক ইতিহাসে প্রথম বারের মত গত বছর করোনা মহামারির কারণে বিদেশিদের হজের অনুমতি দেওয়া হয়নি। ইতিহাস থেকে জানা যায়, এর আগেও বেশ কয়েক বার মহামারীসহ নানা কারণে সীমিত পরিসরে হজ পালিত হয়। কয়েক বার তো হজই অনুষ্ঠিত হয়নি।

আসুন ইতিহাসের পাতা থেকে জেনে নিই কবে কখন কী কারণে হজ পালনে বাধা এসেছিল। কারবালার হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটে ৬৩ হিজরিতে। ইমাম হোসাইনকে (রা.) হত্যা করে ক্ষমতা পাকাপোক্ত করে নেয় ইয়াজিদ। ক্ষমতার শুরু থেকেই মক্কা-মদিনায় নির্মম গণহত্যা চালাতে থাকে পাপীষ্ঠ ইয়াজিদ। এর ঠিক দশ বছর পর ৭৩ হিজরি অর্থাৎ ৬৯৩ খ্রিস্টাব্দে খলিফা আবদুল মালিক বিন মারওয়ানের নির্দেশে হাজ্জাজ বিন ইউসুফ বাইতুল্লাহ অবরোধ করে বসে। সেখানে হজরত আবু বকরের (রা.) নাতি হজরত আসমার (রা.) ছেলে আবদুল্লাহ বিন জোবায়ের (রা.) আত্মগোপন করেছিলেন। তিনি ছিলেন একজন ন্যায়নিষ্ঠ সাহাবী। জালেম শাসকদের সামনে বিরোচিতভাবে সত্য উচ্চারণ করার অপরাধে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। পাপীষ্ঠ মারওয়ান যখন জানতে পারল ন্যায়নিষ্ঠ এ সাহাবী কাবা শরীফে আত্মগোপন করে আছেন, তখন তাকে গ্রেফতার করার জন্য কাবাঘরে সাময়িক সময়ের জন্য তাওয়াফ এবং উমরাহ হজের কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়। শুধু তাই নয়, মারওয়ান কাবা শরিফের একাংশ ভেঙে ফেলে, শুধু এ জন্য যে, ওই অংশ নির্মাণ করেছিলেন মজলুম সাহাবী হজরত আবদুল্লাহ ইবনে জোবায়ের (রা.)। ইরাকের আব্বাসি শাসক ও মিসরে উবায়াদি শাসকদের দুর্বলতার সুযোগে কারামিয়া শাসকরা আরব উপদ্বীপের পূর্ব দিকে বাহরাইনে একটি রাষ্ট্র গঠন করে। তাদের বিশ্বাস ছিল, ‘হজ জাহেলি যুগের একটি নিদর্শন। হজ অনেকটা মূর্তি পূজার মতই।’

তাই ইসলামের ফরজ বিধান হজ বন্ধ করতে কারামিয়া শাসকরা তৎপর হয়ে ওঠে। ৩১৭ হিজরি ৯৩০ খ্রিস্টাব্দ ছিল মুসলমানদের বেদনাদায়ক ইতিহাস। বাহরাইনের শাসক আবু তাহের কারামিয়া নেতৃত্বাধীন সেনাবাহিনী হাজিদের কাফেলায় আক্রমণ করে। অনেক নারী-পুরুষকে হত্যা করে এবং তাদের সম্পদ ছিনতাই করে। ইরাক ও সিরিয়া থেকে মক্কা আসার পথে তারা আতঙ্ক তৈরি করে। ফলে ৩১৭ হিজরি থেকে ৩২৭ হিজরি পর্যন্ত মোট দশ বছর হজের কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

প্রখ্যাত মুসলিম জ্ঞানী এবংঐতিহাসিক আল্লামা ইমাদুদ্দিন ইবনে কাসির (রহ.) আল বিদায়া ওয়ান নেহায়ায় লেখেন, ৩৫৭ হিজরিতে মক্কায় মাশিরি নামের একটি রোগ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় হাজীদের বেশির ভাগ লোকই ওই রোগে মৃত্যুবরণ করেন। কেউ কেউ মক্কায় আসার পথে পিপাসায় কাতর হয়ে মারা যান। আর অনেকে হজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে মারা যান। ইমাম ইবনে জাওজি (রহ.) আল মুনতাজা গ্রন্থে লেখেন, ৩৭২ হিজরিতে আব্বাসি খলিফা ও মিসরের উবাইদি শাসনের মধ্যে সংঘাত সৃষ্টি হয়। ফলে ৩৭২ থেকে ৩৮০ হিজরি পর্যন্ত মোট আট বছর ইরাকের কেউ হজ করতে পারেনি। ৪১৭ হিজরিতে মিসর ও প্রাচ্যের কারো পক্ষে হজ করা সম্ভব হয়নি। ৪২১ হিজরিতে ইরাক ছাড়া অন্যরা হজে অংশ নিতে পারেন। ৪৩০ হিজরিতে ইরাক, খোরাসান, শাম ও মিসরের কেউ হজ করতে পারেনি। কারণ এ সময় দাজলা নদীসহ অন্য বড় নদীর পানি বরফে পরিণত হয়। ফলে মানুষজনের চলাচল অসম্ভব হয়ে পড়ে। ৪৯২ হিজরিতে মুসলিম বিশ্বের শাসকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘাত দেখা দেয়। এতে মক্কায় যাওয়ার পথ অনিরাপদ হয়ে পড়ে। ফিলিস্তিনের বাইতুল মোকাদ্দাস খ্রিস্টানদের দখলে যাওয়ার পাঁচ বছর আগে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। ১০৩৮ হিজরি ১৬২৯ খ্রিস্টাব্দে মক্কায় ব্যাপক বন্যা হয়। ফলে কাবার দেয়াল ভেঙে পড়ে। সুলতান চতুর্থ মুরাদের নির্দেশে কাবা পুনর্নির্মাণের সময় হজ ও ওমরাহর কার্যক্রম বন্ধ থাকে। ১২১৩ হিজরিতে ফরাসিদের আক্রমণের ফলে নিরাপত্তা অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ফলে ওই বছর হজও বন্ধ থাকে। ১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে কলেরায় আক্রান্ত হয়ে তিন-চতুর্থাংশ হাজী মারা যায়। এ ছাড়া আরো কিছু মহামারীর কারণে ১৮৩৭ থেকে ১৮৯২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দীর্ঘ দিন মক্কায় হাজীদের আগমন বন্ধ থাকে।

পরিশেষে মানুষের মধ্যে যার সেখানে যাওয়ার সামর্থ্য আছে, আল্লাহর উদ্দেশ্যে ঐ ঘরের হজ করা তার জন্য আবশ্যক কর্তব্য। (সূরা আল-ইমরান : আয়াত ৯৭) উপরের বিষয়াবলীর আলোকে হজের ইতিহাসকে বুকে ধারণ করে হজের যাবতীয় কর্মকাণ্ড পালন করে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে এগিয়ে যাব। অপর দিকে, অক্ষম ও দুর্বল হাজিদেরকে কর্মকাণ্ড সম্পাদনে সহযোগিতা করব। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক: এমএ কামিল হাদিস, ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

Share This Post

আরও পড়ুন