মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২১ পূর্বাহ্ন

সিআরবি ইস্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীকে মোস্তফা কামাল যাত্রার খোলা চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশ : বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১
  • ৫৫৬ Time View

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম সিটির সিআরবিতে হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ ও নার্স ইনস্টিটিউট নির্মাণ না করার জন্য সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগের অতিথি শিক্ষক ও নাট্যজন মোস্তফা কামাল যাত্রা। বুধবার (২৮ জুলাই) এক খোলা চিঠির মাধ্যমে তিনি এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

চিঠিতে মোস্তফা কামাল যাত্রা লিখেছেন, ‘আপনি জানেন যে, চট্টগ্রামের ফুসফুস খ্যাত সিআরবি এলাকায় ইউনাইটেড গ্রুপে পক্ষ থেকে একটি নতুন হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে রেলওয়ে মন্ত্রণালয়। যদিও সেখানে একটি হাসপাতাল রয়েছে। একজন নগন্য সংস্কৃতি কর্মী হিসেবে আমি মনে করি, শতবর্ষী গাছ কেটে, পরিবেশ ধ্বংস করে, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার নামে থাকা কলোনী ভেঙ্গে, মুক্তিযোদ্ধাদের কবরস্থান উচ্ছেদ করে ঐ স্থানে আরো একটি হাসপাতাল করার যৌক্তিকতা নেই, সেখানে হাসপাতাল নির্মাণ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অসম্মান ও অবমাননাকর হবে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার ক্ষমতায় থাকার পরও দেশে এমন হটকারী পরিবেশ বিধ্বংসী কাজ ঘটবে, তা কোনভাবেই প্রত্যাশিত নয়। এছাড়া প্রস্তাবিত হাসপাতালের সামনেই রয়েছে শিরিষতলা খ্যাত চট্টগ্রামের একমাত্র উন্মুক্ত মঞ্চ ও ঐতিহ্যবাহী সিআরবি ভবন এবং শতবর্ষী বৃক্ষ। প্রতি বছর এখানে আয়োজন করা হয়ে থাকে পহেলা বৈশাখের সাংস্কৃতিক ও বর্ণাঢ্য মেলা এবং সারা বছর এ শিরীষতলায় হয়ে থাকে নানা সাংস্কৃতিক ও নাট্য প্রদর্শনী। যেখানে ব্যবহৃত হয়ে থাকে শব্দযন্ত্র।’

চিঠিতে বলা হয়, ‘আলোচ্য এলাকা আবাসিক দিক থেকে ঘনবসতিপূর্ণ নয় এবং রেলওয়ে পরিচালিত হাসপাতালটি এক ধরণের পরিত্যক্ত অবস্থায়ই আছে। ঐ হাসপাতালে সেই অর্থে কোন চিকিৎসক ও চিকিৎসা সেবা দেয়া হয় না। বর্তমানে এ এলাকাটি চট্টগ্রামের একমাত্র উন্মুক্ত প্রাঙ্গণ হিসাবে পরিগণিত। যেখানে নির্বিঘ্নে শব্দযন্ত্র বাজিয়ে সাংস্কৃতিক আয়োজন ও নাট্য প্রদর্শনী করা যায়।’

চিঠিতে মোস্তফা কামাল যাত্রা জানান, ইতিমধ্যে জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসকদের প্রশান্তির জন্য ডিসি হিলে সংস্কৃতিক কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে। অপর দিকে, চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে প্রার্থনা কক্ষ করে সাংস্কৃতিক কর্মসূচি নিয়ন্ত্রণ করার ব্যবস্থা কার্যকর আছে। আর যদি সিআরবিতে নতুন করে আরো একটি হাসপাতাল হয়, তবে চিকিৎসাবান্ধব এলাকা গড়ে তুলার প্রয়োজনে ভবিষ্যতে চট্টগ্রামের শিরীষতলার একমাত্র উন্মুক্ত মঞ্চে সাংস্কৃতিক ও নাট্য পরিবেশনাও করতে হবে বন্ধ।’

চিঠিতে উল্লেখিত বিবরণ ও পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদের উদ্যোগী ভুমিকা প্রত্যাশা করেছেন মোস্তফা কামাল যাত্রা। যাতে করে রেলওয়ে মন্ত্রণালয় ঐ স্থানে একটি হাসপাতাল থাকা সত্ত্বেও পিপিপির এর আওতায় অপর একটি হাসপাতাল করার জন্য ইউনাইটেড গ্রুপের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে, তা অনতিবিলম্বে বাতিল করে। প্রয়োজনে পূবের্র সরকারি হাসপাতালটিকে উন্নত সেবার জন্য প্রস্তুত করে রেল কর্মচারীদের স্বাস্থ্য সেবা সহজলভ্য করা হোক। যা চট্টগ্রামবাসীরও একান্ত প্রত্যাশা।

উদ্যোগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণপূর্বক ঐতিহ্যবহী সিআরবি এলাকার পরিবেশ সংরক্ষণ এবং শিরিষতলায় যাতে বাধাহীনভাবে সাংস্কৃতিক আয়োজন ও নাট্য প্রদর্শণী চলমান রাখা যায়, তার পথকে প্রশস্থ করার জন্য সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর কাছে বিনীতভাবে প্রত্যাশা করা হয়।

Share This Post

আরও পড়ুন