রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন

সাতকানিয়া এক আকর্ষণীয় জায়গা; এর বুক চিরে বয়ে গেছে সাঙ্গু নদী

লিয়াকত হোসেন খোকন
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩৮৮ Time View

সাতকানিয়া এক আকর্ষণীয় জায়গা। এর বুক চিরে বয়ে গেছে সাঙ্গু নদী।

দর্শনীয় স্থানের ছড়াছড়ি এই সাতকানিয়ায়। যেমন- হলুদিয়া প্রান্তিক লেক; কেঁওচিয়াবনাঞ্চল ও বন গবেষণা প্রকল্প; চরতী বেলগাঁও চা বাগান; সাঙ্গু নদীর তীর; বৈতরণী-শীলঘাটার পাহাড়ী এলাকা; আমিলাইশ বিল ও চরাঞ্চল; মাহালিয়া জলাশয়; ন্যাচারাল পার্ক; মূর্তি সম্বলিত মুদ্রা ও ঠাকুরদীঘি; কোতোয়াল দীঘি; মক্কার বলীখেলার মাঠ; ঢেমশা শিবমন্দির; বাজালিয়া বোমং হাট গির্জা; কাঞ্চনা হিন্দুপাড়া মন্দির; আকবরবাড়ী জামে মসজিদ; ডলু খাল; সত্যপীরের দরগাহ; দারোগা মসজিদ; সোনাকানিয়া ডেপুটি মসজিদ ইত্যাদি কত কি!

তাই সাতকানিয়ায় হতে পারে পর্যটন কেন্দ্র। ব্রিটিশ শাসনামলে প্রশাসনিক ও বিচার কাজের সুবিধার্থে এই এলাকায় আদালত ভবন স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে বর্তমানে অবস্থিত সাতকানিয়া-বাঁশখালী আদালত ভবনের নামে সাত কানি ভূমি অর্থাৎ ২৮০ শতক জনৈক পেঠান নামক এক জমিদার সরকারের অনুকূলে হস্তান্তর বা দান করেন। তখন থেকেই এ উপজেলার নাম সাতকানিয়া হয় মর্মে জনশ্রুতি আছে।

সেই ব্রিটিশ শাসনামলে বাঁশখালী, লোহাগড়া ও সাতকানিয়া নিয়ে যে সার্কেলটি গঠিত হয়েছিল, তার নাম ছিল সাতকানিয়া। ১৯১৭ সালে সাতকানিয়ায় থানা স্থাপিত হয় আর ১৯৮৩ সালে সাতকানিয়া উপজেলায় রূপান্তরিত হয়।

সাতকানিয়া উপজেলার ইউনিয়নগুলো হল- চরতী, খাগরিয়া, নলুয়া, কাঞ্চনা, আমিলাইশ, এওচিয়া, মাদার্শা, ঢেমশা, কেঁওচিয়া, কালিয়াইশ, ধর্মপুর, বাজালিয়া, পুরানগড়, ছদাহা, সাতকানিয়া সদর, সোনাকানিয়া ইত্যাদি।

সাতকানিয়া চট্টগ্রাম জেলার একটি উপজেলা। এই জায়গাটি ব্যবসায় কেন্দ্র হিসেবে সুপরিচিত। সাতকানিয়া উপজেলার আয়তন ২৮২ দশমিক ৪০ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৮০৬ জন (২০১১ বছরের হিসাব অনুযায়ী)।

চট্টগ্রাম থেকে সাতকানিয়ার দূরত্ব ৫৫ কিলোমিটার।

লেখক: লিয়াকত হোসেন খোকন

Share This Post

আরও পড়ুন