রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১১:৫৪ অপরাহ্ন

সাংবাদিকতাকে নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ করার লক্ষ্যে কাজ করছে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল

পরম বাংলাদেশ
  • প্রকাশ : শনিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৩০২ Time View

ঢাকা (১৩ ফেব্রুয়ারি): ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস ২০২১ পালন উপলক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) এক বাণীতে তিনি বলেছেন, ‘স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংবাদপত্রের স্বাধীনতা রক্ষা এবং এ পেশাকে স্বচ্ছ ও জবাবদিহিপূর্ণ করার লক্ষ্য নিয়ে এ প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিলেন। তিনি ১৯৭৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রেস কাউন্সিল আইন প্রণয়ন করেন। দেশের সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা পেশাকে নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতামূলক করার লক্ষ্য নিয়ে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সুদৃঢ় করার প্রত্যয় নিয়ে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল কাজ করে যাচ্ছে। প্রেস কাউন্সিল ২০টি জেলা প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই বিতরণ এবং গোপালগঞ্জ ও কুমিল্লা প্রেস ক্লাবে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু-কর্ণার স্থাপন করেছেন জেনে প্রেস কাউন্সিলকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।’

প্রধান মন্ত্রী আরো বলেন, ‘বর্তমান সরকার তথ্যের অবাধ প্রবাহে বিশ্বাস করে। আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন মেয়াদে সংবাদপত্র ও অন্যান্য গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হয়েছে। তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন ও তথ্য কমিশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। দেশের গণমাধ্যমের বিকাশে ও উন্নয়নে বর্তমান সরকার অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। আমাদের এবারের নির্বাচনি ইশতেহারেও গুরুত্ব পেয়েছে এ পেশার উন্নয়নের বিষয়টি। সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজ বোর্ড গঠন ও গণমাধ্যমকর্মীদের পেশাগত নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রেসক্লাবকে আধুনিকায়ন করে তোলার জন্য আর্থিক অনুদান দেয়া হচ্ছে। জাতীয় প্রেস ক্লাবে গড়ে তোলা হচ্ছে বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার। যেখানে সাংবাদিকরা পাবেন পেশাগত সব ধরনের সুযোগ। বর্তমানে দেশে সংবাদপত্র ছাড়াও ৪৪টি বেসরকারি টেলিভিশন, ২২টি এফএম রেডিও, ৩২টি কমিউনিটি রেডিও, অসংখ্য অনলাইন সংবাদপত্র, অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালু রয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সরকার গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহকে পূর্বের তুলনায় অধিকতর শক্তিশালী ও গতিশীল করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ‘বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন ২০১৪’ প্রণয়ন করেছে। এ আইনের আওতায় একটি ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। সাংবাদিক কল্যাণ তহবিল গঠনসহ বিভিন্ন সহায়তা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়েছে। সাংবাদিক সহায়তা ভাতা-অনুদান নীতিমালা আওতায় সাংবাদিকদের অনুদান দেয়া হচ্ছে। সিড মানি ও অনুদানসহ কল্যাণ ট্রাস্ট করে দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘২০১৯-২০ অর্থ বছরে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট থেকে করোনাকালীন ক্ষতিগ্রস্ত সাংবাদিকদের জন্য প্রধানম ন্ত্রীর বিশেষ আর্থিক সহায়তার অংশ হিসাবে ১০ হাজার টাকা হারে তিন কোটি ৩৫ লাখ টাকা সারাদেশের ৩ হাজার ৩৫০ জন সাংবাদিকের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। করোনাকালীন প্রেস ক্লাব ও সাংবাদিকদেরকে আর্থিক অনুদান দেয়া হয়েছে।’

প্রধান মন্ত্রী বলেন, ‘করোনা ভাইরাস বৈশ্বিক মহামারিতে বাংলাদেশের গণমাধ্যম সক্রিয় থেকে করোনা ভাইরাসের সঠিক তথ্য জনগণের মাঝে তুলে ধরেছে। এ জন্য গণমাধ্যমে নিয়োজিত কর্মীদের আন্তরিক অভিনন্দন এবং গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনা-ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন, তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।’

খবর পিআইডির

Share This Post

আরও পড়ুন