শিরোনাম
চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের সমন্বয় সভায় ট্রেনে যাত্রী সেবা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ নিংশ্বাসের বন্ধু’র প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন চট্টগ্রামে ১৬-১৭ জুন থিয়েটার থেরাপি প্রয়োগ বিষয়ক রিফ্রেশার্স ট্রেনিং চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে জরুরী রোগী ব্যবস্থাপনার দুই দিনের প্রশিক্ষণ শুরু চা শ্রমিক নেতা বাবুল বিশ্বাসের মৃত্যুতে চা শ্রমিক নেতাদের শোক প্রকাশ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর ভ্যাট চায় না চট্টগ্রাম সিটি ছাত্রদল বিডার কাছে ব্যবসায় সহজীকরণের উদ্যোগ চায় বিজিএমইএ মিরসরাই বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরে বেপজার প্লট পেল বঙ্গ প্লাস্টিকসহ দেশি বিদেশি দশ প্রতিষ্ঠান ভারতীয় ভেরিয়েন্ট দেশে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনে কাউন্সিলর শহিদুল আলম
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

শিক্ষা ব্যবস্থায় ধনী-গরীব ও নারী-পুরুষ বৈষম্য বৃদ্ধি পেয়েছে

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক / ১৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১

চট্টগ্রাম: ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষার উপর প্রস্তাবিত কর প্রত্যাহারের দাবিতে সমাবেশ করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগর শাখা।

মঙ্গলবার (৮ জুন) বিকালে চট্টগ্রাম সিটির নিউমার্কেট মোড়ে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগর কমিটির সভাপতি রায়হান উদ্দীনের সভাপতিত্বে সমাবশে বক্তব্য রাখেন নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক ঋজু লক্ষ্মী অবরোধ, সাংগাঠনিক সম্পাদক মিরাজ উদ্দীন, অর্থ সম্পাদক ইসরাত হক জেরিন, পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক ফারিস্তা চৌধুরী, সংগঠক সাকিব হোসেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘এ করোনা মহামারীকালে দেশের অন্যতম বিপর্যস্ত খাত হল শিক্ষাখাত। করোনার কারণে প্রায় ১৭ মাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এতে শিক্ষা ব্যবস্থার অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এর ওপর যাদের জীবিকা নির্ভরশীল, সেই শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রচণ্ড আর্থিক কষ্টে দিনযাপন করছে। দেশের অর্ধেকেরও বেশি শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। শিক্ষা ব্যবস্থায় ধনী-গরীব, নারী-পুরুষ বৈষম্য বৃদ্ধি পেয়েছে। শিক্ষা ব্যবস্থাকে করোনা পূর্ববর্তী অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে ‘দৃষ্টান্তমূলক’ পদক্ষেপ প্রয়োজন বলে মনে করছে ইউনেস্কো। না হলে এ ক্ষতি পূরণ করতে কয়েক দশক সময় লেগে যাবে এবং বিশ্ব একটি জেনারেশনাল ক্যাটাস্ট্রোফেতে পড়বে। অথচ বাজেটে এর কোন প্রতিফলন নেই। শিক্ষা খাতে বরাদ্দ হয়েছে মোট বাজেটের ১১ দশমিক ৯১ শতাংশ, যা জিডিপির মাত্র ২ দশমিক শুন্য ৮ ভাগ। গত বছর এ বরাদ্দ ছিল যথাক্রমে ১১ দশমিক ৬৯ শতাংশ ও ২ দশমিক শুন্য ৯ ভাগ।’

নেতৃবৃন্দ আরো যুক্ত করেন, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয়ের ওপর আবারো ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসানোর ঘৃণ্য চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছে সরকার। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ এ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে অব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বলা হলেও প্রতি বছর এসব প্রতিষ্ঠান বিরাট অংকের মুনাফা করে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফি নির্ধারণে কোন নীতিমালা না থাকায় আরোপিত এ ভ্যাট আদায়ের চাপ গিয়ে পড়বে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি এর ওপরে। এটা মূলত শিক্ষাকে পণ্য ও শিক্ষার্থীদেরকে ভোক্তা বানানোর এক হীন অপচেষ্টা। এ অপচেষ্টা ছাত্র আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আবারো রুখে দিতে হবে।

সমাবেশে বক্তারা দাবি জানান, করের নামে শিক্ষা ধ্বংসের এ নতুন অপচেষ্টা থামিয়ে কর প্রত্যাহার করতে হবে এবং শিক্ষার উপর এসব আগ্রাসন রুখে দিতে সারা দেশের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

প্রেস বার্তা

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ