শিরোনাম
প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা তহবিলে এক কোটি টাকা অনুদান দিল চট্টগ্রাম চেম্বার প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেনের ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম’র আইটি বিশেষজ্ঞ গ্রেফতার চট্টগ্রামে সাদার্ন ইউনিভার্সিটিতে দুই মাসব্যাপী আন্তঃবিভাগ বির্তক প্রতিযোগিতা শুরু নাভানাসহ সীতাকুণ্ডের সব কারখানায় ঈদুল আজহার আগে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দাবি পরিবেশ বিষয়ক গল্প : মন পড়ে রয় । নাজিম হোসেন শেখ পিএইচপি অটো মোবাইলসের তৈরি অ্যাম্বুলেন্স উপহার পেল চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল সোতোকান কারাতে স্কুল চট্টগ্রামের কারাতে বেল্ট প্রতিযোগিতা সম্পন্ন চট্টগ্রামের পাহাড় অপরাজনীতি, অপেশাদার আমলাগিরির শিকার হাটহাজারী নাজিরহাট কলেজে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন

রক্তাক্ত গন্ডামারা: এক । শুরু থেকেই স্থানীয়রা এস আলম গ্রুপকে অবিশ্বাস করতে থাকে

ফজলুল কবির মিন্টু / ৬১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১

পূর্বকথা: ২০১৬ সালের ৪ এপ্রিল বাঁশখালীর গণ্ডামারায় প্রস্তাবিত কয়লা বিদ্যুতের জন্য জমি অধিগ্রহণের সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে চার জন নিহত এবং বহুসংখ্যক আহত হন। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতেও এ প্রকল্পে এক জন নিহত হন। এসব হত্যাকাণ্ডের গ্রহণযোগ্য তদন্ত ও বিচার আজ পর্যন্ত হয়নি।

উল্লেখ্য, নির্মানাধীন কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ব্যাপারে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে কোন প্রকার পরিবেশগত ছাড়পত্র নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া স্থানীয় জনগনের কাছ থেকে জমি ক্রয়ের সময় কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের বিষয়টি গোপন করা হয়। তাদেরকে জানানো হয়, এখানে টেক্সটাইল মিল ও ভেজিটেবল ওয়েল মিল স্থাপন করা হবে। ফলে প্রকল্প কাজের শুরু থেকেই স্থানীয় জনগন এস আলম কর্তৃপক্ষকে অবিশ্বাস করতে থাকে। এস আলম কর্তৃপক্ষ প্রকল্পের জন্য প্রয়োজনের অতিরিক্ত জমি (প্রায় পাঁচ হাজার একর) দখলে নেয়। যার মধ্যে এক হাজার ৭২৮ একর জমি সরকারি খাস জমিও রয়েছে। দেশের আইনে যা কেবলমাত্র ভূমিহীনদের কাছে বন্টন করার নিয়ম রয়েছে।

(চলবে)

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ