বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন

ম্যাজিস্ট্রেট দেখলে পকেট থেকে মুখে যায় মাস্ক!

পরম বাংলাদেশ প্রতিবেদন
  • প্রকাশ : বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩১২ Time View

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম সিটিতে বিভিন্ন পেশার মানুষ তথা দোকানদার, চাকুরিজীবী, ড্রাইভার, যাত্রী, পথচারী এমনকি শিক্ষিত ও সচেতন মানুষও মাস্ক পরিধানে অবহেলা ও অবজ্ঞা করছেন। ম্যাজিস্ট্রেট দেখলে মাস্ক পকেট থেকে দ্রুত মুখে লাগায়। এমনকি শার্ট, গামছা ও হাত দিয়ে মুখ ঢাকছে বা গলিতে, দোকানের ভিতর ঢুকে পড়ছে।

বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান নিশ্চিতে অভিযান চাালিয়ে এমন চিত্র দেখতে পান চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার (১৮ নভেম্বর) সকাল ১১টা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক, রেজওয়ানা আফরিন ও নুরজাহান আক্তার সাথী এ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এতে মুখে মাস্ক না কারণে ৮০ জন ব্যক্তিকে মোট ১১ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এর মধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক নগরীর নিউ মার্কেট ও কোতোয়ালী এলাকায় ৫৩ ব্যক্তিকে নয় হাজার ৩৩০ টাকা, রেজওয়ানা আফরিন জামাল খান ও জিইসি মোড় এলাকায় ২০ জনকে এক হাজার ৫০০ টকা ও নুরজাহান আক্তার সাথী দামপাড়া এলাকায় সাতজনকে ৪৭০ টাকা অর্থদন্ড করেন।

এ সময় মাস্কহীনদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন ম্যাজিস্ট্রেটগণ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক বলেন, ‘করোনার সম্ভাব্য সেকেন্ড ওয়েভকে সামনে রেখে মানুষকে সচেতন করার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত আমরা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি। কিন্তু অনেকেই অবহেলা করে মাস্ক পরিধান না করে জনাকীর্ণ এলাকায় ঘোরাঘুরি করছে, যা স্বাস্থ্য বিধির সম্পূর্ণ লঙ্ঘন। যার ফলে এরা নিজেকে ও অন্যদেরকে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ফেলছে।’

‘তবে আগে থেকে মানুষের মাঝে সচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দিন দিন মাস্ক পরিধানে মানুষের আগ্রহ বাড়ছে এবং মাস্ক না পরলে সচেতন মহল থেকে শাস্তি আরো জোরদার করার বিষয়েও দাবি জানাচ্ছেন।’ বললেন উমর ফারুক।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনা রয়েছে যাতে সবাই বাধ্যতামূলক মাস্ক পরে। মাস্ক পরতে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতিদিন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ দুই শিফটে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে। এছাড়া মাস্কবিহীনদের মাঝে আমরা মাস্ক বিতরণ করছি।’

Share This Post

আরও পড়ুন