শিরোনাম
টেকনাফে কোস্ট গার্ডের অভিযানে ৮০০ পিস আন্দামান গোল্ড বিয়ার জব্দ প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা তহবিলে এক কোটি টাকা অনুদান দিল চট্টগ্রাম চেম্বার প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেনের ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম’র আইটি বিশেষজ্ঞ গ্রেফতার চট্টগ্রামে সাদার্ন ইউনিভার্সিটিতে দুই মাসব্যাপী আন্তঃবিভাগ বির্তক প্রতিযোগিতা শুরু নাভানাসহ সীতাকুণ্ডের সব কারখানায় ঈদুল আজহার আগে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দাবি পরিবেশ বিষয়ক গল্প : মন পড়ে রয় । নাজিম হোসেন শেখ পিএইচপি অটো মোবাইলসের তৈরি অ্যাম্বুলেন্স উপহার পেল চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল সোতোকান কারাতে স্কুল চট্টগ্রামের কারাতে বেল্ট প্রতিযোগিতা সম্পন্ন চট্টগ্রামের পাহাড় অপরাজনীতি, অপেশাদার আমলাগিরির শিকার
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৪:১৩ অপরাহ্ন

মঞ্চ নাটকে সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের প্রণোদনা আসা প্রয়োজন

মোহাম্মদ আলী / ৩১৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১

উদীয়মান ও প্রতিশ্রুতিশীল মঞ্চাভিনেত্রী কেয়া রায়। চট্টগ্রামের গ্রুপ থিয়েটার কথক নাট্য সম্প্রদায়ের নাট্যকর্মী। থিয়েটার ও পড়াশোনার পাশাপাশি কিছু সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে কাজ করেছন তিনি। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে কেয়ার সাথে পরম বাংলাদেশের আলাপচারিতা-

নাম ও ডাক নাম: কেয়া রায়
জন্ম সাল ও তারিখ: ২ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫
জন্মস্থান ও বেড়ে ওঠা: চট্টগ্রাম

লেখাপড়া: এমবিএ, হিসাববিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

পেশা: শিক্ষার্থী
বাবার নাম ও পেশা: কেশব রায় (ব্যবসায়ী)
মায়ের নাম ও পেশা: সুমিতা রায় (গৃহিণী)
ভাই-বোনের সংখ্যা, তাদের নাম ও পেশা: দুই ভাই; সৌরভ রায় (শিক্ষার্থী, ইসলামিয়া কলেজ)
গৌরব রায় (শিক্ষার্থী, প্রবর্তক কলেজ)

অনুপ্রেরণা: বাবা

প্রিয় সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব: হুমায়ুন ফরিদী, আলী যাকের

প্রিয় খাবার: মায়ের হাতে রান্না করা সব খাবার
প্রিয় ফুল: গোলাপ
প্রিয় মুখ: বাবা-মা

অবসরে কি করেন?
কেয়া: গান শুনি, বই পড়ি।

পুরস্কার, সম্মাননা, স্বীকৃতি, সাফল্য
কেয়া: সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আবৃত্তি ও গানে পুরস্কার অর্জন

মঞ্চ নাটক নিয়ে আমার ভাবনা
কেয়া: চট্টগ্রামের একজন নাট্যকর্মী হিসেবে বরাবরই আমার মনে হয়েছে, এখানে সুযোগ-সুবিধা অপ্রতুল এবং সুযোগের অভাবে অনেক মেধাবী মুখ হারিয়ে যাচ্ছে। মঞ্চে কাজের পরিধি বাড়াতে হবে, রিহার্সালের সুযোগ সুবিধা বাড়িয়ে নাট্যকর্মীদের জন্য সুষ্ঠু কাজের পরিবেশ নিশ্চিত কর‍তে হবে।

মঞ্চ নাটকে আসার গল্প শোনান
কেয়া: আমার দলের নাম কথক নাট্য সম্প্রদায়। আমার বাবাকে আমি ছোট বেলা থেকেই দলের সাথে কাজ করতে দেখেছি। ২০১২ সালে ইন্টারমিডিয়েটে উঠার পর দলের অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি নাটক শাস্তিতে বড় বউয়ের চরিত্রের প্রয়োজনে আমাকে কাজ করতে বলা হয়। খুব ভয়ে ভয়ে শুরু করেছিলাম, কিন্তু সবার সহযোগিতায় আমাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি।

নাটক ছাড়া অন্যান্য কাজ:
কেয়া: গান করা, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের নিয়মিত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘আঁরার চাঁটগা’ সাথে কাজ করছি।

এখন কি নিয়ে ব্যস্ত?
কেয়া: আপাতত একাডেমিক পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত সময় যাচ্ছে।

থিয়েটারে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি আপনার? কেয়া: থিয়েটারে কাজ না করলে হয়তো আজকের আমি হয়ে উঠা হত না আমার। একটা উন্মুক্ত পরিবেশের সাথে পরিচিত হয়েছি আমি। থিয়েটার নিয়ে কাজ করে যেতে চাই। আরো ভালো ভালো কাজ করে এগিয়ে যেতে চাই।

চট্টগ্রামে মঞ্চ নাটকে নারীদের উপস্থিতি কেমন?

কেয়া: নারীর উপস্থিতি মোটামুটি। কিন্তু আমার মনে হয় মঞ্চ নাটকে নারীর উপস্থিতি আরো বেশি হওয়া উচিত। আজকে মহিলারা পুরুষদের পাশাপাশি সর্বক্ষেত্রে সমান তালে এগিয়ে চলছে, মঞ্চ নাটকের বেলায়ও একই হওয়া উচিত। সে ক্ষেত্রে পরিবারের সহযোগিতা একান্ত কাম্য।

থিয়েটার জগতে আপনি কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিলেন?
কেয়া: আমাকে সে রকম কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি পড়তে হয়নি। কারণ, আমার বাবা নিজে একজন নাট্যকর্মী এবং দলের সব সদস্য আমাকে সব সময় সাহস ও সহযোগিতা দিয়ে গেছেন। এ দিক থেকে আমি ভাগ্যবতী।

অভিনীত নাটকের সংখ্যা ও নাম:
কেয়া: তিনটি। শাস্তি (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর); মুচিরাম গুড় (বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়) ও চার অধ্যায় (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)।

প্রিয় নির্দেশক: বিক্রম চৌধুরী

৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আপনার বক্তব্য/চাওয়া/আহ্বান কি?
কেয়া: নিজেকে ছোট্ট গন্ডির ভিতরে আবদ্ধ না রেখে, নিজের মেধা ও গুণাবলীকে বিকাশ করার সুযোগ দিতে হবে। আর আজকের দিনে এসে প্রতিটি মেয়ের উচিত নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে, অর্থনৈতিক বা সাংস্কৃতিক জগতে নিজের বলিষ্ঠ উপস্থিতি জানান দেয়া। সর্বোপরি নিজের অধিকারবোধ সম্পর্কে সচেতন হতে হবে, ভালোবাসতে হবে নিজেকে।

মঞ্চ নাটকের প্রচার ও প্রসারে আপনার সুপারিশ কি কি?
কেয়া: আমার মতে মঞ্চ নাটকই পারে সমাজের চারপাশে বিভিন্ন অন্যায় ও দুর্নীতির বুকে কষাঘাত করে শুদ্ধ সমাজ বের করে আনতে। মঞ্চ নাটকের সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর জন্য সরকারি বা বেসরকারি সব ধরণের প্রণোদনা আসা প্রয়োজন। পাশাপাশি নাট্যকর্মীরা যাতে সুষ্ঠু নাট্যচর্চার পরিবেশ পায়, সে দিকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া উচিত।

নিজেকে কিভাবে মূল্যায়ন করেন?
কেয়া: প্রথমেই বলতে পারি, আমি প্রচন্ড মিশুকে একজন মানুষ। নিজের কাজটা মন দিয়ে করার চেষ্টা করি, যে কোনো কাজে সৎ থাকার চেষ্টা করি। কিছু ক্ষেত্রে অত্যধিক আবেগপ্রবণতা আমাকে কষ্ট দেয়। তবুও চেষ্টা করি সর্বাত্মকভাবে ভালো মানুষ হয়ে ওঠার।

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ