শিরোনাম
প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা তহবিলে এক কোটি টাকা অনুদান দিল চট্টগ্রাম চেম্বার প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেনের ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম’র আইটি বিশেষজ্ঞ গ্রেফতার চট্টগ্রামে সাদার্ন ইউনিভার্সিটিতে দুই মাসব্যাপী আন্তঃবিভাগ বির্তক প্রতিযোগিতা শুরু নাভানাসহ সীতাকুণ্ডের সব কারখানায় ঈদুল আজহার আগে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দাবি পরিবেশ বিষয়ক গল্প : মন পড়ে রয় । নাজিম হোসেন শেখ পিএইচপি অটো মোবাইলসের তৈরি অ্যাম্বুলেন্স উপহার পেল চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল সোতোকান কারাতে স্কুল চট্টগ্রামের কারাতে বেল্ট প্রতিযোগিতা সম্পন্ন চট্টগ্রামের পাহাড় অপরাজনীতি, অপেশাদার আমলাগিরির শিকার হাটহাজারী নাজিরহাট কলেজে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন

বিজিএমইএ’র উদ্যোগে চট্টগ্রামে ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু’ পরিবেশিত

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক / ১৩৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৭ মার্চ, ২০২১

চট্টগ্রাম : বিজিএমইএ চট্টগ্রামের উদ্যোগে বিজিএমইএ ভবনের মাহাবুব আলী হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা, কেক কাটা ও বঙ্গবন্ধু জীবনী নিয়ে রচিত নৃত্যালেখ্য ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু’ বুধবার (১৭ মার্চ) সন্ধ্যায় পরিবেশিত হয়।

বাংলাদেশ একাডেমী অব ফাইন আর্টস (বাফা) নৃত্যালেখ্য পরিবেশন করেন। এর আগে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সব শহীদানদের রুহের মাগফেরাত কামনায় কোরআন খতম, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রাখা বিজিএমইএ’র সব প্রয়াত নেতৃবৃন্দের রুহের মাগফেরাত কামনা ও দেশ ও জাতির সার্বিক কল্যাণ কামনা করে মিলাদ ও বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

স্বাগত বক্তব্যে বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, স্বাধীনতার মহান স্থপতি; যাঁর জন্ম বাঙালি জাতিকে দিয়েছে একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ, একটি লাল-সবুজের পতাকা।

মহান নেতার ১০১তম জন্ম বার্ষিকীর শুভালগ্নে তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জ্ঞাপন করে তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনটি আমাদের কাছে অত্যন্ত আনন্দময়। তিনি আমাদের পরাধীনতার নাগপাশ থেকে মুক্ত করে একটি স্বাধীন সার্বভৌম মাতৃভূমি উপহার দিয়েছেন।’

বঙ্গবন্ধুর ১০১তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘বঙ্গবন্ধুর শুভ জন্মদিন, শিশু হৃদয়- হোক রঙ্গীন’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘শিশুদের প্রতি বঙবন্ধুর অকৃত্রিম ভালবাসা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। শিশুরা যেন অনুকুল ও আনন্দময় পরিবেশে বেড়ে উঠে সে জন্য বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন ‘

বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আর্দশে বর্তমান প্রজন্মকে গড়ে তোলার প্রত্যয়ে সকলকে একযোগে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান আবদুস সালাম।

তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ শেষ করার উদ্যোগ নিয়ে নিরলস কাজ করে চলেছেন। ইতিমধ্যে তার সুদক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে।

এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। প্রধানমনন্ত্রীর নেতৃত্বে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্ট সকলের ঐক্যবদ্ধ কর্মপ্রচেষ্টায় ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানের মূখ্য আলোচক প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রামের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বঙ্গবন্ধুর ঘটনাবহুল জীবনের বিভিন্ন অধ্যায় তুলে ধরেন।

তিনি স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে পশ্চিম পাকিস্তানের শোষণ ও বৈষম্যের চিত্র তুলে ধরে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা দাবী ছিল বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ছিল বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ট স্বাধীনতার ভাষণ। তাঁরই নেতৃত্বে বাঙ্গালী জাতীর আপাময় জনসাধারণ পশ্চিম পাকিস্তানের শোষণ ও নির্যাতন থেকে মুক্তির জন্য সংগ্রামে লিপ্ত হয় এবং স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনে। সবাই দিয়েছে অনেক কিন্তু বঙ্গবন্ধু দিয়েছে সব। ‘বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ- বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ উল্লেখ করে তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি এএম চৌধুরী সেলিম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেশপ্রেম, দেশের মানুষের প্রতি তাঁর ভালোবাসা, মহানুভবতাই তাকে বাঁচিয়ে রাখবে প্রজন্মের পর প্রজন্ম, অনন্তকাল। বঙ্গবন্ধু বাংলার আকাশে শ্রেষ্ঠ নক্ষত্র, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, আমাদের সোনার বাংলার কারিগর।’

অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ’র পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ, মোহাম্মদ আতিক, খন্দকার বেলায়েত হোসেন, এনামুল আজিজ চৌধুরী, মিরাজ-ই-মোস্তফা, প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ, নাসিরউদ্দিন চৌধুরী, মঈনউদ্দিন আহমেদ (মিন্টু), প্রাক্তন পরিচালক একেএম সালেহউদ্দীন, আ ন ম সাইফউদ্দিন, আবদুল মান্নান রানা, এমডিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, কাজী মাহাবুবউদ্দিন জুয়েল, মোহাম্মদ সাইফউল্ল্যাহ মনসুরসহ বিজিএমইএ’র অন্যান্য নেতৃবৃন্দ, বিপুল সংখ্যক পোশাক শিল্পের মালিকবৃন্দ, সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, বিজিএমইএ’র কর্মকর্তাবৃন্দ ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রেস বার্তা

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ