ঢাকাশুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরিকল্পনাহীন শিক্ষা ব্যবস্থার পরিণতি বত্রিশ-পঁয়ত্রিশের আন্দোলন

নুরুন্নবী নুর
জানুয়ারি ২৩, ২০২১ ৪:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পরিকল্পনাহীন শিক্ষা ব্যবস্থার কারণ বত্রিশ-পয়ত্রিশের ডাক। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রী অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করতে আমার যেখানে সাতাশ বছর চলে গেল, সেখানে সরকারি চাকরি পাওয়ার বেধে দেয়ার বয়স তো কোনভাবেই যৌক্তিক নয়। বলতে পারেন, পড়াশোনাকালীন প্রস্তুতির কথা! বেশির শিক্ষার্থীদের বিদ্যায়তনিক পড়াশোনার বাইরে ঘরকেও আর্থিক সহযোগিতা করতে হয়। সময় নিয়ে চাকরির প্রস্তুতি নেওয়া, বেশ অকল্পনীয়।

আমার বয়স যখন সাতাশ পেরোল, তখন মহামারী করোনা ভাইরাসের আগমন। তিন বছর ছিল, চাকরির পাওয়ার বয়স। সেখান থেকেও একটি বছর নাই হয়ে গেল। বছরটিতে কয়েকটি নিয়োগে আবেদন করা ছাড়া উল্লেখযোগ্য কিছুই হয়নি। বয়স এখন উনত্রিশ, ৪৩তম বিসিএসকে ঘিরে পড়াশোনা করছি। আগামী বছর বয়স হবে, ত্রিশ। পড়ব, নাকি বয়স ত্রিশ হয়ে যাওয়ার কারণে হতাশায় মরব। তবুও হাল ছাড়িনি, আমাদের হয়ত এনটিআরসিএই শেষ সম্বল।

দেশব্যাপী সরকারি চাকরির প্রবেশের বয়স ৩২/৩৫ করার আন্দোলন শুরু হয়েছে। যৌক্তিক আন্দোলনে একমত হওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই। সরকার বিভিন্ন সময়ে সরকারি চাকরির প্রবেশের বয়স বাড়ানোর যৌক্তিক আন্দোলনকে সমর্থন দিয়েছিলেন। আমার মনে হয়, দেশে বয়স বৃদ্ধির ইতিবাচক আন্দোলনকে সরকার মেনে নিবেন।

বর্তমান আওয়ামী ক্ষমতাসীন সরকার কোনদিনই তরুণদের ডাকে মুখ লুকোয়নি। সেই শাহবাগ চত্বর ডাকই যার প্রমাণ। অচিরেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার ৩২/৩৫ প্রত্যাশী ৩০ লাখ বেকারের আওয়াজকে সমর্থন দিয়ে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ানোর যৌক্তিক আন্দোলন মেনে নিবেন বলে আশা রাখছি।

প্রাক্তন শিক্ষার্থী, নাট্যকলা বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

Facebook Comments Box