মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০২ পূর্বাহ্ন

পপুলার মেডিসিন সেন্টারের প্রতারণা, রাজস্ব ফাঁকি মাজুরী মেডিসিনের লালখান বাজারে

  • প্রকাশ : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৯১ Time View

চট্টগ্রাম: ক্রেতাদের সাথে প্রতারণা ও সরকারী রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রশাসনের কাছে ধরা খেয়েছে চট্টগ্রাম মহানগরীর লালখান বাজার এলাকায় অবস্থিত ওষুধ বিপনীর তিনটা প্রতিষ্ঠান। অনিয়মের দায়ে এ তিনটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করে ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এর মধ্যে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্রস্তুত করা প্যাকেটে ফিজিশিয়ান রেখে ক্রেতার সাথে প্রতারণার দায়ে মেসার্স পপুলার মেডিসিন সেন্টারকে ৩০ হাজার টাকা, রাজস্ব ফাঁকির দায়ে মাজুরী মেডিসিনকে ৫০ হাজার টাকা ও আলম মেডিকেয়ারকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান।

একই সাথে এ তিনটি প্রতিষ্ঠানটি থেকে বিদেশী অননুমোদিত ওষুধ ও ফিজিশিয়ান স্যাম্পলগুলো জব্দ করা হয়।

রোববার ( ৮ নভেম্বর) সকাল ১১টা হতে দুপুর একটা পর্যন্ত লালখান বাজারের চানমারী রোডে অভিযান চালান তিনি।

ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান জানান, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্রস্তুতকৃত ওষুধের প্যাকেটের মধ্যে ফিজিশিয়ান স্যাম্পল রেখে বিক্রি করছে পপুলার মেডিসিন সেন্টার। আইনানুসারে ফিজিশিয়ান স্যাম্পল বাণিজ্যিকভাবে বিক্রি করা যায় না। তারা এ কাজের মাধ্যমে মানুষের সাথে প্রতারণা করছেন।

অপরদিকে, খুচরা বিক্রির উদ্দেশ্যে লাইসেন্স নিলেও অনেক দিন ধরেই পাইকারী কার্যক্রম চালাচ্ছে মাজুরী মেডিসিন। এছাড়াও রিজার্ভের জন্য দুইটি গুদামের বিপরীতে ওষুধ প্রশাসনের অনুমতি প্রতিষ্ঠানটি নেয় নি।

আলী হাসান বলেন, ‘খুচরা কার্যক্রমের জন্য সরকারকে বছরে ৯০০ টাকা এবং পাইকারীর জন্য ১০ হাজার টাকা রাজস্ব দিতে হয়। মূলত রাজস্ব ফাঁকি দিতেই খুচরা বিক্রির লাইসেন্স নিয়েও পাইকারীতে ওষুধ বিক্রি করছিলো প্রতিষ্ঠানটি।’

এ দিকে, লাইসেন্স ব্যতীত ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালাচ্ছিল আলম মেডিকেয়ার। তাই, লাইসেন্স করার জন্য প্রতিষ্ঠানটিকে ২০ দিন সময় দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

ওষুধ প্রশাসনের ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক মো. কামরুল হাসান ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সদস্যরা অভিযানে সহায়তা করেন।

Share This Post

আরও পড়ুন