শিরোনাম
চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের সমন্বয় সভায় ট্রেনে যাত্রী সেবা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ নিংশ্বাসের বন্ধু’র প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন চট্টগ্রামে ১৬-১৭ জুন থিয়েটার থেরাপি প্রয়োগ বিষয়ক রিফ্রেশার্স ট্রেনিং চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে জরুরী রোগী ব্যবস্থাপনার দুই দিনের প্রশিক্ষণ শুরু চা শ্রমিক নেতা বাবুল বিশ্বাসের মৃত্যুতে চা শ্রমিক নেতাদের শোক প্রকাশ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর ভ্যাট চায় না চট্টগ্রাম সিটি ছাত্রদল বিডার কাছে ব্যবসায় সহজীকরণের উদ্যোগ চায় বিজিএমইএ মিরসরাই বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরে বেপজার প্লট পেল বঙ্গ প্লাস্টিকসহ দেশি বিদেশি দশ প্রতিষ্ঠান ভারতীয় ভেরিয়েন্ট দেশে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনে কাউন্সিলর শহিদুল আলম
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০১:৩৬ অপরাহ্ন

নির্দিষ্ট কোনো দর্শনীয় স্থান না থাকলেও পুরো লংগদু এলাকাটাই দর্শনীয়

নুরুন্নবী নুর / ১৪৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২১

২৪ ডিসেম্বর ঘুম থেকে উঠেছি সকাল দশটায়। বড় ভাই নয়টার দিকে পাহাড়ে থাকা এক ভান্তেকে দেখতে যেতে বলেছিলেন। ঘুমের জন্য যেতে পারিনি।

একটু ফ্রেশ হয়ে ঘুরতে বের হলাম। পরিচিত জায়গাগুলোতে নিয়ে গেলেন ভাই। তার প্রাইমারী ও উচ্চ বিদ্যালয় ঘুরে ঘুরে দেখালেন। লংগদু বাজারের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সেখানকার সুন্দর জায়গাগুলোতে ঘুরে ভীষণ ভাল লাগছিল। ঘরে ফিরলাম দুপুর আড়াইটা নাগাদ।

খেয়ে দাওয়া শেষ ছুটলাম মাঠের উদ্দেশ্যে। এর আগে মাঠকে খেলার উপযোগী করে তৈরি করা হয়েছে। আমিও অংশগ্রহণ করেছিলাম। আজকে স্থানীয় একটা স্কুলের সাথে এলাকার বড় ভাইদের প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ আছে। বড় ভাইদের এগার জনের দলে আমারও জায়গা হয়েছে। প্রথম ম্যাচে আমরা খুব সহজ জয় তুলে নিলাম।

দ্বিতীয় ম্যাচে ওপেনার হিসেবে নামার সুযোগ হয়েছিল। ওপেনিংয়ের দায়িত্বটা ভালোভাবে পালন করলাম মনে হল। আশানুরূপ পারফরম্যান্স করে আট ওভারের খেলায় ছয় ওভারে আউট হয়ে ফিরতে হলো। কিন্তু দুঃখের বিষয় ওই ম্যাচে বোলিংয়ের ব্যর্থতায় হারতে হলো।

খেলা শেষ হতে হতে সন্ধ্যা হয়ে গেল। ভাইয়ের ঘরের পাশে দোকানে বিপিএলের খেলা চলছে, কিছুক্ষণ দেখে বাসায় ফিরলাম।

নির্দিষ্ট কোনো দর্শনীয় স্থান না থাকলেও পুরো লংগদু এলাকাটাই দর্শনীয় স্থান মনে হলো। সাজানো গোছানো একটা গ্রাম। ঘুরার মতো অনেক জায়গা রয়েছে। রাত আটটায় খেয়ে দেয়ে দশটায় ঘুমাতে গেলাম।

(চলবে)

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ