ঢাকারবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নিজের বদলে নির্দোষ মিনুকে জেল খাটানো যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী কুলসুম গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
জুলাই ২৯, ২০২১ ৭:০৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামে নিজের পরিবর্তে নিরপরাধ মিনুকে জেল খাটানো যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী কুলসুম আক্তার প্রকাশ কুলসুমী গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার (২৮ জুলাই) দিবাগত রাত তিনটার দিকে ইপিজেড থানাধীন দুই নম্বর মাইলের মাথা কমিশনার গলি হতে তাকে গ্রেফতার কোতোয়ালী থানা পুলিশ। তাকে ওই কাজে সহযোগিতার করার দায়ে মর্জিনা আক্তার (৩০) নামে অপর এক নারীকেও আটক করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত কুলসুম আক্তার প্রকাশ কুলসুমী লোহাগাড়া থানার মাঝে পাড়ার আহাম্মদ মিয়ার বাড়ীর আনু মিয়ার কন্যা। তবে বর্তমানে কুলসুম কোতোয়ালী থানার রহমতগঞ্জের, ৮১ নম্বর গলির সাঈদ ডাক্তারের ভাড়াঘরে থাকত।

ঘটনার শুরু যেভাবে: ২০০৬ সালের ২৯ মে কোতোয়ালী থানার রহমতগঞ্জ ৮১ নম্বর গলির সাইদ সওদাগরের ভাড়াঘরের মোবাইলে কথা বলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে গার্মেন্টস কর্মী পারভিনকে গলাটিপে হত্যা করা হয়। এরপর রহমতগঞ্জে একটি গাছের সঙ্গে তাকে ঝুলিয়ে রাখা হয়। পারভিন আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি করেন গার্মেন্টস কর্মী কুলসুম আক্তার কুলসুমী। ওই ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হলেও মামলার তদন্তে হত্যাকান্ডের ঘটনা প্রতীয়মান হওয়ায় ওই ঘটনার প্রেক্ষিতে কোতোয়ালী থানায় দন্ডবিধি আইনের ৩০২ ধারায় মামলা হয়।

মামলায় দুই বছর তদন্ত শেষে আদালতে কুলসুমা আক্তার কুলসুমীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। কুলসুমা আক্তার কুলসুমী ওই মামলায় গ্রেফতার হয়। মামলায় সে ২০০৭ সালের ২৬ অক্টোবর হতে ২০০৯ সারের ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে হাজতবাস করেন। কুলসুমা জামিনে আসার পর মামলার বিচার কার্য শেষে ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ চতুর্থ আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম আসামী কুলসুম আক্তার কুলসুমীকে পারভিন হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরো এক বছরের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেন। বিষয়টি জানতে পেরে মর্জিনা আক্তারসহ (৩০) অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের একটি চক্রের মাধ্যমে নিরপরাধ মিনু নামের এক মহিলাকে কুলসুমা আক্তার কুলসুমী সাজিয়ে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে ২০১৮ সালের ১২ জুন আদালতে আত্মসমর্পণ করালে মিনু ২০২১ সালের ১৬ জুন পর্যন্ত হাজতবাস করে।

বিষয়টি এডভোকেট গোলাম মাওলা মুরাদ চট্টগ্রাম জজকোর্টের নজরে আনেন। তিনি হাইকোর্টে এ বিষয়ে আপিল করলে হাইকোর্ট বিভাগ মিনু বেগমকে জামিনে মুক্ত দেওয়ার নির্দেশ দেয়। পরবর্তী অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ চতুর্থ আদালত আদেশ সহকারে আসামী কুলসুমা আক্তার কুলসুমীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

Facebook Comments Box