বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন

নারীরা নারীই, সঙ্গের সাথী, দুঃখের বন্ধু এবং আদর্শের অনুসারী নয়: আহমদ ছফা

পরম বাংলাদেশ / ৮৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আহমদ ছফা অবিবাহিত ছিলেন। একটা মজার ঘটনা আছে-হুমায়ূন আহমেদসহ কয়েকজন প্রতিজ্ঞা করেছিলেন কেউ বিয়ে করবেন না। সবাই বিয়ে করেছিলেন, এক আহমদ ছফা ছাড়া। তিনি চিরকুমার-ই ছিলেন।

আহমদ ছফা নাস্তিক ছিলেন না। তার অনেক লেখা ও চিঠিতে তার প্রমাণ পাওয়া যায়।

তার কিছু বিখ্যাত উক্তি:

‘লোকে যাই বলুক, যাই অনুভব করুক, নিজের কাছে আমি অনন্য।’

‘সরলতা এবং সততাই আমার মূলধন।’

‘নারীরা নারীই, সঙ্গের সাথী, দুঃখের বন্ধু এবং আদর্শের অনুসারী নয়।’

‘বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রনাথ ছাড়া আর কারো রচনায় আমার মন বসে না।’

‘কার্লাইল গ্যয়টেকে মহাপুরুষ মুহাম্মদের চাইতেও বড় মনে করেছেন। আমার ধারণা, তিনি ভুল করেছেন। কারণ হযরত মুহাম্মদ (স.) জীবনের স্বরুপ উপলব্ধি করে নিজস্ব মহিমায় স্থিত করেছেন। আর গ্যয়টে শুধু জীবনের মহিমা কীর্তন করেছেন। Prophetic genious এর সাথে Poetic genious এর এখানেই তফাৎ।’

‘বাংলাদেশের আসল বস্তুব বলে যদি কিছু থাকে তা হলো এর আমলাতান্ত্রিক কাঠামো। স্থবির, অনড়, লোভী, হৃদয়হীন এবং বিদেশী শক্তির ক্রীড়নক হওয়ার জন্যে সর্বক্ষণ প্রস্তুত।’

‘মানুষের শরীরে যেমন টিউমার থাকে, পণ্ডিতেরাও তেমনি সামাজিক টিউমার। প্রকৃতির গভীর গোপন রহস্য এরা বোঝে না। এরা বিশ্বাস করে ছাপার অক্ষরের প্রমাণ।’

‘মহৎ সাহিত্যের মধ্যে একটা পবিত্র প্রাণশক্তি সব সময়েই থাকে। এটা এক ধরণের আশ্চর্য রহস্যময় শক্তি। অনেকটা মা-রেফাত বা আধ্যাত্মিক তত্ত্বের মতো।’

‘ইসলামের সম্ভাবনা এবং ঐতিহ্যের সঙ্গে যোগহীন কোনো রাজনীতির ভবিষ্যত এদেশে নেই।’

‘মানুষ যে সমস্ত কথা বলে, ইতিহাসের কাছে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য সজ্ঞানভাবে লিখে যায়, ও সমস্ত প্রয়াসের মধ্যে একটা কপটতা রয়েছে।’

‘মাথায় খুস্কি, চোখের নিচে কালো দাগ এবং দাঁতের ব্যথা-এ তিনটি যেনো আমি সাহিত্য, সঙ্গীত এবং রাজনীতির কাছে থেকে পেয়েছি।’

‘বোকা লোকেরা বোকামীতে ভয়ানক চালাক। তারা সর্বশক্তি প্রয়োগ করে বোকামীকে টিকিয়ে রাখতে চায়।’

আহমদ ছফা (৩০ জুন, ১৯৪৩ – ২৮ জুলাই, ২০০১) একজন বাংলাদেশি লেখক, ঔপন্যাসিক, কবি, চিন্তাবিদ ও গণবুদ্ধিজীবী ছিলেন। জাতীয় অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক ও সলিমুল্লাহ খানসহ আরো অনেকের মতে, মীর মশাররফ হোসেন ও কাজী নজরুল ইসলামের পরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাঙালি মুসলমান লেখক হলেন আহমদ ছফা। তার লেখায় বাংলাদেশি জাতিসত্তার পরিচয় নির্ধারণ প্রাধান্য পেয়েছে।

সূত্র: কোরা, উইকিপিডিয়া

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ