মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

দুই কিশোরের মহত্ব: কষ্টের আয় থেকে ৪০০ টাকা ফেরত দিল গাড়ি ভাড়ার জন্য!

পরম বাংলাদেশ প্রতিবেদন / ১১০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম সিটির কোতোয়ালী থানা এলাকা থেকে ব্ল্যাকমেইল করে চাঁদাবাজীর দায়ে দুই কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৮ নভেম্বর) দিবাগত রাত দেড়টা থেকে সোয়া দুইটা মধ্যে রিয়াজ উদ্দিন বাজার মাংস হাটা লেইনের পাশে গগন মার্কেট এবং ইলেকট্রকি গলি হতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদের কাছ থেকে লোহার রড, চুল কাটার মেশিন ও বিকাশে ক্যাশ আউট করা চাঁদাবাজির নগদ ১০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত কিশোর অপরাধী দুজন হলো আনোয়ারার দক্ষিণ সরেঙ্গা মির্জা আলীর নতুন বাড়ীর জাকির আহম্মেদের পুত্র মো. . রাশেদুল ইসলাম (১৯) এবং খুরুস্কুল হাজী বাড়ীর মৃত আব্দুল আজিজের পুত্র মো. নাঈম উদ্দীন (১৬)।

ঘটনা কি ছিল? বায়েজীদ থানাধীন কুলগাঁও আহসানুল উলুম জামিয়া গাউসিয়া কামিল মাদ্রাসায় পড়া-লেখার সুবাদে কিশোর রাশেদুল ইসলামের সাথে চাকুরিজীবী সায়েম খানের (২২) পরিচয় হয়। গত শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) বিকালে কেনা-কাটার জন্যে নিউ মার্কেট এসেছে জানতে পেরে সায়েম খানকে দেখা করতে বলে রাশেদুল।

সায়েম সরল বিশ্বাসে রিয়াজ উদ্দিন বাজারস্থ ইলেক্ট্রিক গলির প্রবেশ মুখে হাতের বাম পাশে রাশেদুলের মা-বাবার দোয়া শুটকীর দোকানে গিয়ে দেখা করে। সেখানে কিশোর নাঈম উদ্দীনের সাথেও সায়েমের দেখা হয়। কথা বার্তার এক পর্যায়ে রাশেদুল ইসলাম সায়েম খানকে সাথে নিয়ে রিয়াজ উদ্দিন বাজার মাংস হাটা লেইনের পাশে গগন মার্কেটের দ্বিতীয় তলার কক্ষে নিয়ে যায় এবং নাঈমকে বাসায় যেতে বলে। রাত সাড়ে আটটার দিকে রাশেদুল বাসায় নিয়ে সায়েমকে কাপড় খুলতে বলে। এ সময় হঠাৎ রাশেদ চড়াও হয় সায়েমের উপর। তার মাথায় কোমড়ের বেল্ট দিয়ে এবং গায়ে ও হাতে স্টিলের রড দিয়ে জোরে আঘাত করে রাশেদ। ভয়ে সায়েম পরনের কাপড় খুলতে থাকে। নাঈম এসে রাশেদের সাথে সুর মিলিয়ে সায়েমকে গালিগালাজ করে এবং নগ্ন অবস্থার ভিডিও ধারণ করতে বলে। নাঈম চেপে ধরলে রাশেদ কক্ষে থাকা চুল-দাড়ি কাটার ইলেকট্রিক ট্রিমার মেশিন দিয়ে মাথার চুল কেটে দেয় এবং মোবাইল ফোনে সায়েমের নগ্ন শরীরের ভিডিও ধারণ করে। দুজন ভিডিও ধারণ শেষে ভিডিও ফুটেজ আত্মীয়-স্বজন ও পরিচিত লোকজনদের কাছে পাঠিয়ে মান-সন্মান ক্ষুন্ন করার হুমকি দিয়ে সায়েমের কাছ থেকে দশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।

অসংখ্য বার অনুরোধ করার পরও কর্ণপাত না করে দাবিকৃত টাকা দিতে লোহার রড দিয়ে সায়েমকে আঘাতের ভয় দেখায় রাশেদ। নিরুপায় হয়ে হাটহাজারী এনায়েতপুরে বসবাসকারী ফুফি খালেদা বেগমকে (৩৫) ফোন করে রাশেদের কথা মত এবং তার প্রদত্ত বিকাশ নাম্বারে জরুরী ভিত্তিতে টাকা পাঠাতে অনুরোধ করে সায়েম।

সায়েমের ফুফি সাথে সাথে টাকা পাঠায়, রাশেদ রাত নয়টা ২৬ মিনিটে বিকাশে খরচ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ক্যাশ আউট করে। টাকা হাতে পেয়ে রাশেদ ও নাঈম তাকে বাসায় চলে যেতে বলে এবং দেখে নেওয়ার হুমকী দেয়। প্রাণ ভয়ে কাপড়-চোপড় পরে চলে আসার সময় রাশেদ সায়েমের প্যান্টের পকেটে মানিব্যাগে থাকা ১ হাজার ৬০০ টাকাও নিয়ে নেয়। তবে ৪০০ টাকা ফেরৎ দিয়ে রাত ১০টার দিকে সিএনজি যোগে বাসায় চলে যাওয়ার জন্য বলে।

সায়েম খান বাসায় গিয়ে বিষয়টি আত্মীয়-স্বজনের সাথে আলোচনা শেষে থানায় এসে এজাহার দায়ের করলে ওই দুই কিশোর অপরাধীর বিরুদ্ধে একটি মামলা রুজু হয় বলে জানান ওসি মোহাম্মদ মহসিন।

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ