মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

চুয়েটে আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর পরিদর্শনে বিএইচটিপিএ’র এমডি হোসনে আরা

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক / ৬২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) নির্মিতব্য শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর স্থাপন প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের (বিএইচটিপিএ) ব্যবস্থাপনা পরিচালনা (এমডি) হোসনে আরা বেগম

শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) সকাল ১১টার দিকে তিনি চুয়েট ক্যাম্পাসে অবস্থিত এ সাইট পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলমের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মত বিনিময় করেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএইচটিপিএ’র অর্থ ও প্রশাসন বিভাগের পরিচালক এএনএম সফিকুল ইসলাম, প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ জহুরুল ইসলাম, হাইটেক পার্কের প্রকল্প পরিচালক মো. মোস্তফা কামাল, অর্থ ও প্রশাসন বিভাগের উপ-পরিচালক খাদিজা আক্তার, অপারেশন ও মেইনটেন্যান্স বিভাগের উপ-পরিচালক নরোত্তম পাল এবং সহকারী পরিচালক (বিনিয়োগ) শাহরিয়ার আল হাসান।

চুয়েটের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন প্রধান প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম, ইনকিউবেটরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সামসুল আরেফিন প্রমুখ।

পরিদর্শনকালে বিএইচটিপিএ’র এমডি
হোসনে আরা বেগম চুয়েটের শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর স্থাপন প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনের পাশাপাশি প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, প্রকৌশলী ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে মত বিনিময়ও করেন।

উল্লেখ্য, দেশের তথ্য প্রযুক্তি খাতে সফল উদ্যোক্তা তৈরি, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে গবেষণা ও উদ্ভাবনী কার্যক্রমকে উৎসাহিত করা এবং ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া কোলাবোরেশনকে আরো সম্মৃদ্ধ করার পাশাপাশি আইটি শিল্পে বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের সুযোগ আরও অবারিত করার মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের আয় প্রত্যাশিত মাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে চুয়েটে সর্ব প্রথম শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প স্থাপন করা হচ্ছে। প্রায় ১২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সরকারের একটি ড্রিম প্রকল্প হিসেবে এটাকে বিবেচনা করা হচ্ছে। বর্তমানে এটার নির্মাণকাজ প্রায় শেষের দিকে।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) ২৬তম সভায় ২০১৭ সালের ৬ জুন এ প্রকল্পটি অনুমোদন হয়। বিএইচটিপিএ’র অধীনে
প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হচ্ছে। এ প্রকল্পের আওতায় চুয়েট ক্যাম্পাসে ১০ তলা ভবনের মূল ইনকিউবেশন ভবন তৈরি হবে। এছাড়াও একটি ছয় তলা বিশিষ্ট মাল্টিপারপাস ভবন এবং ২০০ কক্ষ বিশিষ্ট দুইটি আধুনিক ডরমিটরি নির্মাণ করা হচ্ছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ