মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন

চট্টগ্রাম সিটির ফুসফুস খ্যাত `সিআরবি’ আজ হায়েনাদের কবলে

ফয়সাল বাপ্পী
  • প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১
  • ১৫০ Time View
ফয়সাল বাপ্পী

ফয়সাল বাপ্পী: ‘দাও ফিরে সে অরণ্য, লও এ নগর’-রবি ঠাকুর। ‘আমরা বিশ্বের অরণ্যগুলিতে যা করছি, তা হল আমার নিজের ও একে অপরের প্রতি যা করছি তার প্রতিচ্ছবি।’- মহাত্মা গান্ধী। ‘একটি জাতি হিসাবে থাকতে, একটি রাষ্ট্র হিসাবে সমৃদ্ধ হতে, একটি মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকতে, আমাদের কাছে অবশ্যই গাছ থাকতে হবে।’- থিওডোর রুজভেল্ট।

বৃক্ষ আর চট্টলা একসূত্রে গাঁথা। সবুজের সমারোহ ও প্রকৃতির আশীর্বাদপুষ্ট ছিল বাংলার চট্টলা। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, কালের বিবর্তনে মানুষের লোভাতুর চাহনিতে চট্টলার সেই প্রাকৃতিক নান্দনিকতা আগের মত নেই।

অথচ বৃক্ষ হলে মানুষের ফুসফুস, বৃক্ষ পৃথিবীর প্রাণীকূলের জীবন রক্ষাকারী অক্সিজেন ভান্ডার। তাছাড়া মানবজাতির টিকে থাকার জন্য বৃক্ষের গুরুত্ব অপরিসীম। কত স্বার্থহীনভাবে বৃক্ষ মানব কল্যাণে বিলিয়ে দিয়েছে তার অস্তিত্ব।

অথচ সেই মানুষ নানাভাবে বৃক্ষ নিধনের ধ্বংসাত্মক খেলায় মেতে উঠে। তেমনি একটি স্থান চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী সিআরবি। চট্টগ্রাম মহানগরের ফুসফুস খ্যাত সিআরবি আজ হায়েনাদের কবলে। বৃক্ষ অথবা হাসপাতাল- কোনটি প্রয়োজনীয়, এমন প্রশ্ন অমূলক! কারণ মানবজাতির জন্য দুটোই অতি প্রয়োজনীয়। আমি এ ক্ষেত্রে বৃক্ষের প্রয়োজনীয়তা অধিক বলে মন্তব্য করবে।

চট্টগ্রাম মহানগরে হাসপাতাল নির্মাণ করার মত জায়গার অভাব আছে বলে আমি মনে করি না। কিন্তু সেই হাসপাতাল যেন সিআরবিতে না হয়। আশা করি, কর্তৃপক্ষ এ ব্যপারে সুদৃষ্টি দিবেন।

আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন বৃহৎ কর্মসূচীর মাধ্যমে বৃক্ষরোপণ ও বনায়নে ব্যপক গুরুত্ব দিয়েছেন। সে ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ ইতিমধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় বৃক্ষরোপণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের আপামর জনতাকে নিয়ে একটি সবুজ বাংলাদেশ গড়তে বিভিন্ন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন।

সেক্ষেত্রে ঐতিহ্যবাহী শতার্ধ বৃক্ষ কেটে হাসপাতাল নির্মাণের প্রয়োজন আছে কি? কর্তৃপক্ষের নিকট আকুল আবেদন থাকবে, বিষয়টিকে বিবেচনা করার। আমরা হাতপাতাল চাই, কিন্তু বৃক্ষ নিধন করে হাসপাতাল চাই না। আমরা সবুজের সমারোহে বাঁচতে চাই। এটা আমার দাবি, এটা আমাদের দাবি, এ দাবিতে আপোষ নেই।

লেখক: সাবেক সহ সম্পাদক, কেন্দ্রীয় নিবার্হী সংসদ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

 

Share This Post

আরও পড়ুন