রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন

গ্রীষ্মকাল আসার আগেই বাসায় থাকা এয়ার কন্ডিশনারগুলো সার্ভিসিং করা জরুরী

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২৯২ Time View

শীত পেরিয়ে আগমন ঘটেছে ঋতুরাজ বসন্তের। এ সময়ে প্রকৃতি ধারণ করেছে নবরূপ। চারপাশে কোকিলের কুহু কুহু ডাক। গাছপালা সেজেছে সম্পূর্ণ নতুন রূপে। বইছে বসন্ত বাতাস। কুয়াশার চাদরে মোড়ানো আকাশের ফাঁক গলে উঁকিঝুঁকি দিচ্ছে র্সূয। বাংলাদেশ নামের ভূখণ্ডে বছর ঘুরে বসন্তকাল এলেই এমন দৃশ্য চোখে পড়ে।

প্রকৃতির এ ভিন্নরূপ মানুষের হৃদয়ে এনে দেয় এক পশলা স্বস্তি। তবে, আর কিছুদিন বাদেই বিদায় নেবে ঋতুরাজ, রুদ্রমূর্তি ধারণ করে আসবে গ্রীষ্ম। গ্রীষ্মকাল মানুষের মাঝে প্রাকৃতিক কারণেই এক ধরণের অস্বস্তরি জন্ম দেয়। কারণ, গ্রীষ্মকালের সূর্যের প্রখর তাপে তেঁতিয়ে উঠবে পরিবেশ। যার প্রভাব পড়বে মানুষরে দৈনন্দিন জীবনের ওপর। তবে, এ সময় অস্বস্তি দূর করে মানুষের জীবনে স্বস্তি এনে দিতে এয়ার কন্ডশিনাররে জুড়ি মেলা ভার।

গ্রীষ্মকাল আসার আগ মুহূর্তে দেশের মানুষ গরমের তোপ আঁচ করতে পারছেন। সময় গড়ানোর সাথে সাথে গরমের তীব্রতা আরো বেড়ে যাবে। তীব্র গরম থেকে রক্ষা পেতে হয়তো ইচ্ছা জাগবে হিমেল বাতাসে শরীর ও মন জুড়াতে। কিন্তু, বিভিন্ন কারণে এটি সবসময় সম্ভবপর হয়ে উঠবে না। তবে, এর বিকল্প উপায়ও রয়েছে।

গরমের তোপ থেকে মানুষকে স্বস্তি দিতে এয়ারকন্ডিশনার হতে পারে এক কার্যকর সমাধান। তাই, গ্রীষ্মের আগমনের আগেই বাসায় থাকা এয়ার কন্ডিশনারগুলো সার্ভিসিং করা জরুরি। কিন্তু, অনেকের মাঝে এয়ারকন্ডিশনারের সার্ভিসিং নিয়ে বেশ কিছু বদ্ধমূল ধারণা রয়েছে। অনেকে মনে করেন এ পণ্যটির সার্ভিসিং অনেক ঝামেলার।

নিয়ম মাফিক কিছু বিষয় মেনে চললে খুব সহজেই বাসায় বসেই এ প্রয়োজনীয় উপকরণটির যত্ন নেওয়া যা। যেমন: র্দীঘ দিন এয়ার কন্ডিশনাগুলো চালু না থাকার কারণে এর এয়ার ফিল্টার ধুলোয় ভরে যায়। এ ধুলো জমার কারণেই বাতাস চলাচল বাধা পায়, ফলে এয়ারকন্ডিশনার ঠিক মতো কাজ করতে পারে না। খুব বেশি ধুলো জমলে ফিল্টারটি পানি দিয়ে পরিষ্কার করলেই হয়। খুব বেশি ময়লা জমে গেলে একটু ডিটারজেন্ট পাউডার বা লিক্যুইড সাবান দিয়ে পরিষ্কার করা যেতে পারে। এছাড়াও, খুব সহজেই বাসায় এয়ার কন্ডিশনারের ফ্যান পরিষ্কার করা যায়। শুকনো কাপড়, ব্রাশ কিংবা এয়ার ব্লোয়ার থাকলে তা দিয়ে

এয়ার কন্ডিশনারের ফ্যানের ব্লেযে আটকে থাকা ময়লা সহজেই পরিষ্কার করা যায়। এসির সর্বোত্তম পারফর্মেন্সের জন্য প্রতি দুই সপ্তাহে একবার ফিল্টার পরিষ্কার করলেই হয়।
তবে, যারা স্যামসাংয়ের এয়ারকন্ডিশনার ব্যবহার করেন তারা খুব সহজইে স্যামসাংয়রে সেবা কেন্দ্রে ফোন (টোল ফ্রি- ০৮০০০-৩০০-৩০০) করে দক্ষ সার্ভিসিং দলের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। এসি পরিষ্কারের সেবা নেয়ার পাশাপাশি এসির উপযুক্ত ব্যবহার এবং কীভাবে এর রক্ষণাবেক্ষণ করলে তা সর্বোচ্চ পর্যায়ে ব্যবহার উপযোগী থাকবে এবং দীর্ঘ দিন ব্যবহার করা যাবে, সে সব বিষয়ে পরামর্শ দিবেন স্যামসাংয়ের সার্ভিস দল।

আসন্ন গ্রীষ্মকালে গরমরে তোপ থেকে রক্ষা পেতে যারা এসি কেনার কথা ভাবছেন মূল্য ও বিক্রয়োত্তর সেবার বিষয়টি বিবেচনা করে তারা নিশ্চিন্তে স্যামসাংয়রে নন-ইনভার্টার ও ইনভার্টার মডেলের এসি ক্রয় করতে পারেন। পরিবেশ বান্ধব ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী এয়ার কন্ডিশনারগুলো ব্যবহারকারীদের একটি স্বাচ্ছন্দ্য ও নিশ্চিন্ত জীবন উপভোগে সাহায্য করবে।

নিউজ রিলিজ

Share This Post

আরও পড়ুন