ঢাকাশুক্রবার, ৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গ্রীন কফি: উপকারিতা ও খাওয়ার পদ্ধতি

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক
আগস্ট ১৭, ২০২২ ৯:১০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক: গ্রিন কফির কদর বাড়ছে দিন দিন। শধুই কফি প্রেমীরা যে পছন্দ করছেন, এমন নয়। যারা স্বাস্থ্য সচেতন, তাদেরও বিশেষ পছন্দ এ গ্রিন কফি। এ কফি কিন্তু রোস্টেড নয়। কফি গাছ থেকে দানা তুলে তা নিষ্কাশিত না করেই বানানো হয় এ সবুজ কফির দানা। এর মধ্যে থাকে ক্যাফেইন ও ক্লোরোজেনিক এসিড। বলা হয়, কফি বীজ রোস্ট করা হলে তার মধ্যে থাকা এ উপকরণগুলি নষ্ট হয়ে যায়। যে কারণে বলা হয়, রোস্টেড কফি খেলে রক্তচাপ বেড়ে যায়। আজকাল ওজন কমাতে সকলেই পছন্দ করছেন গ্রিন কফি। এ ছাড়াও রোস্টেড হয় না বলে এ কফি অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর। তবে গ্রিন কফি খাওয়ার বেশ কিছু নিয়ম রয়েছে। সেই নিয়ম মেনে না খেলে হতে পারে কিছু শারীরিক অসুবিধে। তবে গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ক্যাফেইন মেটাবলিজম রেট দশ শতাংশ পর্যন্ত বাড়াতে পারে। ক্লোরোজেনিক এসিডের সাহায্যে ক্যাফেইন পৌষ্টিকনালীতে কার্বোহাইড্রেট শোষণ কমাতে পারে। রক্তে ইনসুলিনের পরিমাণ বাড়িয়ে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে। টানা ১২ সপ্তাহ ধরে গ্রিন কফি খেলে শরীর ভাল থাকে আর উপকারও পাওয়া যায়।

রক্তচাপ কমায়: গ্রিন কফির মধ্যে থাকে ক্লোরোজেনিক এসিড; যা উচ্চ রক্তচাপকে কমিয়ে হৃৎপিণ্ডকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। সেই সাথে হার্টের সমস্যাকেও অনেকটা দূরে রাখে।

কর্মক্ষমতা বাড়ায়: গ্রিন কফি কর্মক্ষমতা বাড়ায়। কারণ, এর মধ্যে থাকে ক্যাফেইন; যা অবসাদ আসতে দেয় না। এর ফলে মন থাকে ফুরফুরে। অনেক বেশি কাজ করা যায়। আর গ্রিন কফি খিদে কমিয়ে দেয়। ফলে সেই সময়ও বাঁচে। বেশি কাজ করা যায়।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে: গ্রিন কফি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। যেহেতু রোস্ট করা হয় না, তাই এর মধ্যে অন্য উপাদানও থাকে অনেক বেশি। শরীর থেকে ক্ষতিকর টক্সিন বের করে দেয়। পেট পরিষ্কার রাখে। লিভার আর রক্ত পরিশোধনের কাজ করে। এর ফলে ত্বকও ভাল থাকে।

ফ্যাট কমায়: গ্রিন কফি যেমন সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখে, তেমনই হরমোনের কাজকে স্বাভাবিক রাখে। গ্রিন কফির মধ্যে থাকা ক্লোরোজেনিক এসিড ফ্যাটকে ভেঙে মেটাবলিজম রেট বাড়িয়ে দেয়। যার ফলে খিদে একদমই পায় না। উপরন্তু ওই ফ্যাট ভেঙে শক্তিও আসে। ফলে শরীর থাকে তরতাজা। গ্রিন কফির সাথে টানা এক্সসারসাইজ করলে ফ্যাট অনেকটাই কমে। খাবারের পরিমাণ কমালেই শরীরে ফ্যাট জমবে কম। এ ছাড়াও গ্রিন কফি খেলে শরীরে সামান্য দুর্বলতা থাকে। যার ফলে খাওয়ার ইচ্ছেটাই কমে যায়।

কীভাবে খাবেন গ্রিন কফি: বাজারে এখন গ্রিন কফি বিনস ও কফি ডাস্ট পাওয়া যাচ্ছে। তবে এ কফি সঠিক নিয়মে না খেলে শরীর অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে। আর তাই ৩০০ গ্রাম জলে ২০ গ্রাম এ সবুজ কফির দানা দিয়ে ফোটাতে হবে। আগের রাতে জলে কফি দানা ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সেই জল ছেঁকে নিয়ে খুব ভাল করে ফোটাতে হবে। টানা ৫-১০ মিনিট ফুটতে দিন। এবার ওর সাথে মধু আর দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে খান। সকালে ব্যায়ামের পর খালি পেটেই খান গ্রিন কফি। এ কফি খাওয়ার অন্তত দশ মিনিট পর অন্য কিছু খাবেন।

Facebook Comments Box