শিরোনাম
নিংশ্বাসের বন্ধু’র প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন চট্টগ্রামে ১৬-১৭ জুন থিয়েটার থেরাপি প্রয়োগ বিষয়ক রিফ্রেশার্স ট্রেনিং চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে জরুরী রোগী ব্যবস্থাপনার দুই দিনের প্রশিক্ষণ শুরু চা শ্রমিক নেতা বাবুল বিশ্বাসের মৃত্যুতে চা শ্রমিক নেতাদের শোক প্রকাশ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উপর ভ্যাট চায় না চট্টগ্রাম সিটি ছাত্রদল বিডার কাছে ব্যবসায় সহজীকরণের উদ্যোগ চায় বিজিএমইএ মিরসরাই বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরে বেপজার প্লট পেল বঙ্গ প্লাস্টিকসহ দেশি বিদেশি দশ প্রতিষ্ঠান ভারতীয় ভেরিয়েন্ট দেশে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনে কাউন্সিলর শহিদুল আলম টেকনাফে কোস্ট গার্ডের অভিযানে ৮০০ পিস আন্দামান গোল্ড বিয়ার জব্দ
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১২:৩০ অপরাহ্ন

গান, নাচ উপভোগ ও চা পানসহ জাহাজে করে আমরা পৌঁছালাম মাজারে

নুরুন্নবী নুর / ১১৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০

গত পর্বের পর: রাত নয়টা দশ মিনিটে বরকল অন্তর্ভূক্ত সুবলংয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। পঙ্খিরাজের মতো একটি বোর্ডের ব্যবস্থা করলেন আয়োজক কমিটি। রাঙ্গামাটি বাস ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নকে ধন্যবাদ না দিয়ে পারা যায় না। ধর্মীয় কাজে আয়োজকের এরূপ ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার কারণে সম্মানটা বেড়ে গেল।

দুই তলা বিশিষ্ট জাহাজ। চতুর্দিকে বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে। রাঙ্গামাটি সদরে ফিসারিজ ঘাটে বাধা জাহাজটি বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে যাত্রীদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইয়ে দিলো। সিঁড়ি বেয়ে উঠলাম আমরা সকলে। এতো বড় জাহাজ করে প্রথম কোনো দীর্ঘ ভ্রমণে বের হচ্ছি। আগে জাহাজে না চড়লেও স্পীড বোর্ডে চড়ার অভিজ্ঞতা ছিলো, তবে সে সময়টা খুব অল্প।

দুই তলা বিশিষ্ট জাহাজে উঠে এই দিক ওই দিক ঘুরে ফিরে বার বার দেখছিলাম। চিত্তাকর্ষক জাহাজ প্রতিজন যাত্রীর মনে খুশির বন্যা বইয়ে দিলো। দ্বিতীয় তলার সিটগুলো দেখতে সুন্দর ও আরামদায়ক ছিলো, নীচের সিটগুলো পরিত্যাক্ত বাসের সিটের মতো। যা-ই হোক, সব মিলিয়ে জাহাজের ভেতরের অবস্থা খুবই চাকচিক্যময়।

ছয়জন লোক বিভিন্ন প্রকার দায়িত্ব নিয়ে জাহাজ ছাড়ল। তার মধ্যে আছেন ‘সারেং’ যিনি চালকের আসনে বসেন, ‘লস্কর’ যিনি নোঙর তোলা ও ফেলার কাজ করেন, ‘কেরানি’ যিনি ভাড়ার টাকা তোলার কাজ করেন, তিনি অনেকটা মালিক বা ম্যানেজারের মতোন, ‘মিস্ত্রী’ যিনি সারেংয়ের সহকারীর কাজ করে থাকেন। তার কাজ সিগনাল দেয়া, ‘লঞ্চের স্টাফ/বাবুর্চি’ যিনি সবার রান্না বাড়া কাজ করেন, সর্বশেষ ‘দোকানদার’- লঞ্চের স্টাফের মতো দোকানের কাজ করেন।

মূলত এ ছয়জনের তদারকিতে জাহাজ গন্তব্যস্থলে পৌঁছায়। জাহাজটি প্রায় ৮০০-৯০০ যাত্রী ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন। তবে যাওয়ার সময় আমাদের যাত্রীর সংখ্যা ছিলো ৪৫০-৫০০জন।

যাত্রাপথের বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে আছে চট্টগ্রাম থেকে আগত বেতার ও টিভি কাওয়ালী শিল্পী। প্রতি বছর এ রুপ আয়োজনের রেওয়াজ আছে। পীরের শানে কাওয়ালী গান (গজল) করবেন দুই জন কাওয়ালী শিল্পী, নাম- মো. ছৈয়দ এরফান কাওয়ালী ও তার সহযোগী মো. বিজয় কাওয়ালী।

সারারাত জাহাজটাকে মাতিয়ে তোলার দায়িত্ব, তাঁদের দুই জনের। গানের সাথে নাচ চলতে না চলতে কিছু দূর গিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়। কারণ অতিরিক্ত নাচের ফলে জাহাজ ডানে-বায়ে তীব্রভাবে দুলছিল, যা কিছুটা বিপদসংকুলও বটে। বাধ্য করা হয়, আপাতত ‘না’ নাচার জন্য। কাছাকাছি আসলে নাচতে বলা হয়েছে। শুরুর দিকে কথা মেনে চললেও আরো কিছু দূর যেতে না যেতে নাচ শুরু হয়ে গেল।

জাহাজে যে পাটাতনে গান পরিবেশন হচ্ছিল, গুটিকতক ছেলের দল উপভোগ করতে পারছিলো, বাকিরা নিজ জায়গায় বসে শুনছিলো।

সত্যিই মুহূর্তটা খুবই উপভোগ্য ছিলো। ভুলার মতোন না। মামা ধনা মিয়ার (রাঃ) শানে যত ধরনের বন্দনা করে গান করা যায়, তারা তা পরিবেশন করলেন। এভাবে গান ও নাচ উপভোগের পাশাপাশি জাহাজে চা পানের মধ্য দিয়ে আমরা পৌঁছালাম মাজারে।

অবশ্য যাত্রার শেষ হওয়ার একটু আগে সেনাবাহিনী আমাদের ট্রলার চেক করলেন। যাত্রীদের কাছে অবৈধ কিছু গচ্ছিত আছে কিনা, যাচাই করলেন। কিছুই পেলেন না। আমার কাছে ছাড়া তেমন কারো কাছে ব্যাগ ছিলো না। আমি নিয়েছি, কারণ বরকল থেকে আমি রাঙ্গামাটির আরেক উপজেলা লংগদু যাওয়ার প্রাথমিক প্রস্তুতি ছিলো।

বরকল মাজার প্রাঙ্গণে পৌঁছতে প্রায় দুই ঘন্টা সময় লেগেছিল। সম্ভবত রাত ১১টায় আমরা মাজারে পৌঁছি।
(চলবে…)

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ