বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন

ক্ষতির মুখে চট্টগ্রামের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র ফয়’স লেক; চালুর অনুমতিসহ চায় প্রণোদনা

পরম বাংলাদেশ প্রতিবেদন
  • প্রকাশ : শনিবার, ৮ মে, ২০২১
  • ১৮৬ Time View

চট্টগ্রাম: করোনা মহামারী রোধে সরকারী ঘোষণা অনুযায়ী চট্টগ্রামের প্রধান বিনোদন পার্ক ফয়’স লেক গত ১ এপ্রিল থেকেই বন্ধ রয়েছে। এরপর করোনা মহামারী ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় সারা দেশে সরকারি বিধি-নিষেধের ফলে বিনোকেন্দ্রগুলো বন্ধ রয়েছে।

ইতিমধ্যে সব মানুষের কর্মসংস্থান ও সার্বিক অর্থনীতি বিবেচনা করে কতৃপর্ক্ষ কিছু কিছু গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে শর্ত আরোপ করে বিধি-নিষেধ শিথিল করেছে, যার ফলে সামগ্রীকভাবে মানুষের চলাচল বাড়লেও করোনা বিস্তারের হার কমেও এসেছে।

সামনে ঈদ উল ফিতর। এটাই পর্যটন ব্যবসায়ের মূল সময় বিবেচিত হয়। গত বছরে সরকারি নির্দেশে বিনোদনকেন্দ্রগুলো প্রায় ছয় মাস বন্ধ ছিল। এ সময় বিশাল অংকের ক্ষতির সম্মুখীন হয়। গত বছরে সাধারণ ছুটি শেষে শেষে ফয়’স লেক কমপ্লেক্সসহ পার্কগুলো সরকারী স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলেছিল। এর ফলে মানুষ দীর্ঘ দিন ঘরে বসে কাটানোর পর একটু স্বস্তি নিয়ে বের হতে পেরেছে।

এ মুহূর্তে সরকারের কাছে ফয়’স লেক কর্তৃপক্ষের দাবি- সরকারী স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিনোদন পার্কগুলো খোলার পথ পরিসর করা, যেন বিনোদন পার্ক প্রতিষ্ঠানগুলো টিকে থাকতে পারে এবং সকলের কর্মসংস্থানে ব্যাঘাত না ঘটে। সর্বোপরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে পার্ক চালুর অনুমতি চায় কনকর্ড পরিচালিত ফয়’স লেক কর্তৃপক্ষ।

ফয়’স লেক কমপ্লেক্সের বর্তমানে কর্মীদের বেতন, নিরাপত্তা ও মেইনটেন্স বাবদ মাসে খরচ প্রায় ৪৫ লাখ টাকা। ঈদ উপলক্ষে বোনাসসহ এ খরচ বেড়ে ৬৫ লাখ টাকার কাছাকাছি হবে, যা প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব সংকটে মুখে ফেলেছে।

ফয়’লেক এ্যামিউজমেন্ট পার্কের (কনকর্ড এন্টারটেইনমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড) ডেপুটি ম্যানেজার (মার্কেটিং) বিশ্বজিৎ ঘোষ বলেন, ‘এ সেক্টর ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে প্রণোদনার ব্যবস্থা করলে আমাদের জন্য ভাল হবে। সরকারের কাছে আবেদন থাকবে, সরকার যাতে পর্যটন খাত নিয়ে এবং বিনোদন পার্কগুলো টিকিয়ে রাখার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেয়।’

Share This Post

আরও পড়ুন