সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৬:৩৭ অপরাহ্ন

কিশোর মোটিভেশন: শৈবাল দাশ ও ওসি মহসিনের সাথে যোগ হচ্ছেন সোলায়মান সুখন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশ : সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩০৮ Time View

চট্টগ্রাম: কিশোরদের সঠিকভাবে পরিচালিত করার উদ্দেশ্যে ‘ডোর টু ডোর কাউন্সিলিং’ কার্যক্রম গ্রহণ করতে যাচ্ছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) জামাল খান ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন। এ কাজে তাকে সহযোগিতা করবেন কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন। এ দুই তারকা ব্যক্তিত্বের সাথে যোগ হচ্ছেন দেশ সেরা মোটিভেশনাল স্পীকার ‘সোলায়মান সুখন‘। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমন বার্তাই দিলেন শৈবাল দাশ।

কিশোর সমাজ, তাদের অভিভাবক এবং প্রশাসনের সাথে একটি যোগসূত্র স্থাপন করবে ‘ডোর টু ডোর কাউন্সিলিং’ কার্যক্রম- এমনটা মনে করেন তিনি।

একটি সেমিনারের মাধ্যমে এ কার্যক্রমের সূচনা করতে চান তিনি। আর এ সেমিনার উদ্বোধন করবেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানবীর। প্রতি মাসে একটি করে সেমিনারের আয়োজন করা হবে। সেমিনারে কিশোর ও অভিভাবকদের কাউন্সিলিং করবেন দেশ সেরা মোটিভেশনাল স্পিকারগণ।

এ নিয়ে শৈবাল দাশ সুমন ফেসবুকে লিখেছেন, আলোচনা ও পরিকল্পনা চলছে। আমাদের প্রয়াসটাই শুধু সফলভাবে বাস্তবায়নের অপেক্ষায়। প্রাথমিকভাবে আমাদের জামাল খান ওয়ার্ড এলাকায় বাস্তবায়ন করার কাজ অনেকটাই এগিয়ে গেছি। এখন শুধুই অসমাপ্ত কাজগুলো করার বাকি। কিশোর সমাজের জন্য তৈরি হচ্ছে আমাদের এই কার্যক্রম।’

সুমন জানান, কিশোর এবং তাদের অবিভাবকদের জন্য শুরু হতে যাচ্ছে শিক্ষা ভিত্তিক সেমিনার। রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে অংশগ্রহণের সুযোগ করা হবে সকলের জন্যই। সেমিনারে ‘কিনোট স্পীকার’ থাকছেন আইডল স্পীকার অ্যান্ড মোটিভেশনাল স্পীকার ‘সোলায়মান সুখন’।

খন্দকার মোহাম্মদ সোলায়মান হলেও তিনি ‘সোলায়মান সুখন’ নামেই পরিচিত। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লাখ লাখ মানুষের উৎসাহদাতা। তরুণ প্রজন্মের কাছে আইডল। জীবন সংগ্রামের ভাঙা-গড়ার অভিজ্ঞতার গল্প শুনিয়ে প্রেরণা জোগান। সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলে তৈরি করেন জনসচেতনতা। শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নয়; বিভিন্ন সেমিনার ও জাতীয় অনুষ্ঠানে কথার জাদু ছড়িয়ে ইতোমধ্যে সাড়া ফেলেছেন। এই প্রথম বারের মত তিনি আসবেন আমাদের আলোকিত জামালখান ওয়ার্ডে বক্তৃতা দিতে। এই আয়োজন শুধুই আমাদের কিশোরদের সঠিকভাবে পরিচালিত করার জন্যই- লিখেছেন সুমন।

এ নিয়ে তিনি বললেন, ‘বর্তমান যুগটা হচ্ছে কাউন্সিলিংয়ের যুগ। জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানও কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমেই পুরো জাতিকে এক করেছিলেন। কাউকে জোর করে কিছু করেন নি তিনি। আমরা কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে ১৩-১৯ বছর বয়সী টিনেজারদের সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করতে চাই। এ কার্যক্রমের মাধ্যমে কিশোর, তাদের অভিভাবক ও প্রশাসনের মধ্যে একটি সংযোগ তৈরি হবে। এর ফলে যে কোনো সমস্যার সমাধানে প্রশাসন এগিয়ে আসবে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যেই চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে একটি সেমিনার আয়োজন করে এ কার্যক্রম শুরু করতে চাই।’

সেমিনারে পর্যায়ক্রমে সুশান্ত পাল, আয়মান সাদিকের মতো মোটিভেশনাল স্পিকাররা যোগ হতে পারেন- এমনটা আভাস দিয়েছেন শৈবাল দাশ সুমন।

Share This Post

আরও পড়ুন