ঢাকাশুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একজন তাহসান মানে বিশ্বাস ও আত্মসম্মানের ফুল প্যাকেজ

মোহাম্মদ আজীম উদ্দীন
নভেম্বর ২৯, ২০২০ ৪:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মেয়েদের চোখে তাহসান একজন আদর্শ মানুষ। আমার দেখা বাংলাদেশে আর কোনো সেলিব্রেটির এতটা ফিমেল ফ্যানবেজ নাই, যতোটা এই ভদ্রলোকের আছে। তারপরও উনার লাইফে কোনো নারী কেলেঙ্কারির ছিটে-ফোঁটা নেই।

এক তো মিডিয়ার লোক এত বড় স্টার, ইউনিভার্সিটির প্রফেসর। সব জায়গায় মেয়েদের আনাগোনা। এত সুযোগ থাকার পরও উনার লাইফে প্রেমিকাকে ও বিয়ে পরবর্তী বউকে কোনো দিনও ঠকায় নি। প্রেম বলুন বা বিয়ে পরবর্তী সম্পর্কে তিনি ছিলেন অনড়। সম্পর্ককে কতটা সম্মান করলে এত সুযোগ থাকার পরও একটা মানুষ এত ক্লিন ক্যারেক্টারের হতে পারে, ভাবুন তো একবার!

প্রতিকূল পরিস্থিতিতে নিজের কাছের মানুষের বিশ্বাস বাজি রাখাটা শিখুন উনার কাছ থেকে।

চাইলেই যে কোনো ধরনের বাজে পরিস্থিতিতে নিজেকে লয়াল রাখা যায়। সেটাও আমাদের উনার কাছ থেকে শেখা উচিত।

এতটা ভালোবাসার পরও উনার সংসার টেকে নি। বিচ্ছেদে মোড় নেয়।

বিচ্ছেদের পরও উনি উনার ওয়াইফকে কটাক্ষ করে কথা বলেনি। খুঁত ধরা ও দোষ খোঁজা নিয়ে পড়ে থাকে নি। অথচ হলুদ সাংবাদিকের দল মুখোরুচক শিরোনামের জন্য হাজারো প্রেশার করেও উনার মুখ দিয়ে প্রাক্তন স্ত্রীর নামে কিছুই বলাতে পারে নি। প্রতি বার তিনি হয়তো ভেবেছেন, তার সাথে সংসার করা মানুষটার কথা। কখনোই অসম্মান করেন নি। বরঞ্চ উনিই সবার আগে বলেছে, ‘সবচে বড় পরিচয় সে আমার বাচ্চার মা, আমি কোনো ভাবেই তাকে নিয়ে কিছু বলতে পারি না। সে যেমনই হোক।’

কি দারুণ কথা। একবার ভাবুন তো। এমন সুন্দর করে কয় জনই বা বলতে পারে?

অথচ আমরা সম্পর্কে সামান্য নড়-বড়ে হলে ফেইসবুকে পোস্ট দিয়ে বেড়াই। ফ্রেন্ডলিস্টের গোটা মানুষকে জানিয়ে দেই। নিজের প্রাইভেসি ব্রেক করি। দোষ খুঁজি, খুঁত ধরে কাহিনী করি।

সম্পর্ক যে পরিস্থিতিতে থাকুক না কেন? তাহসানের কাছ থেকে শিখুন, সম্পর্কের ওপারের মানুষটাকে কিভাবে সম্মান করা যায়।

এর পর উনার এক্স ওয়াইফের একের অধিক আপত্তিকর ছবি ইন্টারনেটে ভাইরাল হলো। ভিন্ন ধর্মী একজনের সাথে বিয়েও হলো। উনি চাইলেই তখন কত কিছু বলতে পারতেন, যেহেতু বিচ্ছেদ অলরেডি হয়ে গেছে। কিন্তু তখনও তিনি কিছুই বলেন নি তার সম্পর্কে। সবার উত্তর তিনি একদিনে দিয়েছে বেইলি রোডের কনসার্টে, বলেছেন ‘আই ডোন্ট কেয়ার!’

আমাদের বিচ্ছেদের পর ঠিক এই রকমই হওয়া উচিত। যে ফেলে গেছে তাকে নিয়ে পড়ে থাকা নিতান্ত বোকামি।

আপনাকে যে বুঝলো না, আপনার ভালো থাকার কথা যে ভাবলো না, আপনাকে পাত্তা দিলো না, যে আপনাকে ছেড়ে মাঝ পথে রেখে চলে গেলো, তাকে নিয়ে ভাবছেন? ব্যাপারটা এক প্রকার নিজের আত্মসম্মান বিসর্জন দেওয়া নয় কি?

উনার কিন্তু সুযোগ ছিল উনি বিচ্ছেদের সময় যতটা অপমানিত হয়েছে, দেশের মানুষের সামনে, সেটার প্রতিশোধ নেওয়া। কিন্তু তা করলো না! এমন ভাব করলো, ডাজন্ট কেয়ার!

বিচ্ছেদের পর পরিস্থিতি যতটা বাজে হোক না কেন? মাথা ঘামানো যাবে না।

একজন তাহসান মানে বিশ্বাস, সম্মান ও আত্মসম্মানের ফুল প্যাকেজ।

Facebook Comments Box