সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন

আ জ ম নাছিরের ঈদ উপহার পেলেন চট্টগ্রাম সিটির ২৬০ মুক্তিযোদ্ধা

পরম বাংলাদেশ ডেস্ক
  • প্রকাশ : শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১
  • ২৯৫ Time View
আ জ ম নাছির উদ্দিন

চট্টগ্রাম: বৈশ্বিক মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে ও পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অধীন ২৬০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ জুলাই) দুপুরে দারুল ফজল মার্কেটে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কার্যালয়ে এসব উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন। উপহার সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে দশ কেজি চাল, এক কেজি চিনি, এক কেজি মসুর ডাল, এক লিটার সয়াবিন তেল, দুই কেজি আলু ও এক কেজি পিঁয়াজ।

সংসদ চট্টগ্রাম নগর ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদের সভাপতিত্বে ও সহকারী কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শফর আলী।

এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংসদের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল হক চৌধুরী সৈয়দ। থানা কমান্ডারদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন আকবর শাহ থানার ডেপুটি কমান্ডার মো. নূর উদ্দিন। অনুষ্ঠানে মহানগরী ও বিভিন্ন থানা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অধীন বীর মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধারা কারো করুনার পাত্র নয়। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের কল্যাণে যথেষ্ট আন্তরিক বলেই মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ১২ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকায় উন্নীত করেছেন। দেশের সার্বিক উন্নয়নে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী সব সময় জনগণের পাশে থাকেন। বৈশ্বিক মহামারী করোনার ক্রান্তিলগ্নেও জনগণের পাশে আছে ‘ জাতির এ দুঃসময়ে নিজ তহবিল থেকে নগরীর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ঈদ সামগ্রী দেয়ায় আ জ ম নাছির উদ্দিনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে তারা নিজের স্বার্থেও কথা চিন্তা না করে জীবন বাজী রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েই আমাদেরকে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ উপহার দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁদের ‘বীর’ উপাধি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারী করেছেন। সমগ্র জাতি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মৃতি চট্টগ্রামে আছে। আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানান দিতে চট্টগ্রাম নগরীতে একটি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিশৌধ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নগরীর নান্দনিক সৌন্দর্য্যমন্ডিত পতেঙ্গা বে-টার্মিনালের পরে সরকারী জায়গায় মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিশৌধ করা গেলে নগর আরও দৃষ্টিনন্দন হবে। পবিত্র ঈদুল আযহার পরপরই মহানগর আওয়ামী লীগ ও বীর মুক্তিযোদ্ধারা মিলে এখানে স্মৃতিশৌধ নির্মাণের সম্ভাব্য জায়গা পরিদর্শন করে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে চিঠি লিখে প্রধানমন্ত্রীকে বিষয়টি জানানো হবে। সরকার চাইলেই সরকারী খাস জায়গায় একটি প্রকল্প নিয়ে স্মৃতিশৌধ নির্মাণ করে দিতে পারে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সিটি মেয়র থাকাকালীন মানসম্মত নগরায়নে কাজ করেছি। এখন মেয়র পদে না থাকলেও চট্টগ্রাম নগরবাসীর সার্বিক কল্যাণে নিয়োজিত আছি, ভবিষ্যতেও থাকব।’ চট্টগ্রাম মহানগর, জেলা, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগসহ এখানকার মন্ত্রী, প্রতি মন্ত্রী, উপ মন্ত্রী ও এমপিরা ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে চট্টগ্রামের কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব বলে তিনি মন্তব্য করেন।

Share This Post

আরও পড়ুন